পীর আল্লামা শাহ কুতুব উদ্দিনের ইন্তকালে এমপি নদভীর শোক-

পীর আল্লামা শাহ কুতুব উদ্দিনের ইন্তকালে এমপি নদভীর শোক-

রিদুয়ানুল হক,স্টাফ রিপোর্টা দর্পণ টিভিঃ-

২০মে বুধবার বিকাল ৫টায় বায়তুশ শরফের সর্বজন শ্রদ্ধেয় পীর সাহেব আল্লামা শাহ মুহাম্মদ কুতুব উদ্দিনের ইন্তকাল করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তার মৃত্যুতে গভীর শোক জ্ঞাপন করেন চট্টগ্রাম-১৫ (সাতকানিয়া-লোহাগাড়া) আসনের সাংসদ প্রফেসর ড.আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, আল্লামা কুতুব উদ্দিনের চির বিদায়ের মধ্য দিয়ে পরিসমাপ্তি ঘটলো এক বর্ণাঢ্য ও আলোকিত অধ্যায়ের ছাত্র জীবন থেকে প্রখর মেধার অধিকারী ছিলেন তিনি। অভিভক্ত পাকিস্তানে ফাযিল পরীক্ষায় সম্মিলিত মেধাতালিকায় প্রথম স্থান অধিকারের গৌরব অর্জন করেছিলেন তিনি। আমার বাবা আল্লামা আবুল বারাকাত মুহাম্মদ ফজলুল্লাহ (রাহঃ) এর অত্যন্ত প্রিয় ছাত্র হিসেবে আমাদের মাঝে গড়ে উঠে ব্যক্তিগত ও পারিবারিক সম্পর্ক। দ্বীনের খেদমতে সারাটি জীবন কাটিয়ে দিয়েছেন তিনি। তরিকতের পীর ছাড়াও তিনি ছিলেন একাধারে স্বনামধন্য শায়খুল হাদীস, মুফাসসির, মুফতি এবং আরবি, ফার্সি, উর্দু ও বাংলা ভাষার কবি ও সাহিত্যিক। উর্দু কবিতা রচনায় তাঁর বিশেষ পারঙ্গমতা ছিল। প্রকাশিত হয়েছে তাঁর একাধিক উর্দু কাব্য বই। তরিকতের পাশাপাশি দীর্ঘদিন শিক্ষকতা পেশায় জড়িত ছিলেন। পঠন ও পাঠনে তাঁর আলাদা বৈশিষ্ট্য ছিল। কঠিন ও জটিল কথাকে সহজভাবে প্রকাশ করার দক্ষতা ছিল। ব্যক্তিজীবনে তিনি ছিলেন মিষ্টভাষী, বন্ধুবৎসল, উদার, পরোপকারী ও অতিথিপরায়ণ। কৃতজ্ঞতাবোধের প্রাবল্য তাঁর জীবনকে মহিমান্বিত করে। বিনয়, সৌজন্যতা, ঋজুতা তাঁর চরিত্রের উল্লেখযোগ্য দিক। তাঁর মধ্যে ছিল পরকে সহজে আপন করে নেয়ার পারঙ্গমতা। উগ্রতা ও শৈথিল্য পরিহার করে মধ্যমপন্থাকে তিনি অধিক পছন্দ করতেন। তিনি ছিলেন উদার হৃদয়ের অধিকারী। তাঁর ইন্তেকালে এক আলোকিত মানুষের চির বিদায় ঘটলো। ড.নদভী পীর সাহেব বায়তুশ শরফ মরহুম শাহ মুহাম্মদ কুতুব উদ্দিনের আত্মার মাগফিরাত কামনার পাশাপাশি শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেন।

সংবাদ শেয়ার করুন

themesbazartvsite-01713478536