লোহাগাড়ার সদর ইউনিয়নবাসী আতঙ্কিত উপজেলা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ-

লোহাগাড়ার সদর ইউনিয়নবাসী আতঙ্কিত উপজেলা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ-

ইসমাইল হোসেন সোহাগ,স্টাফ রিপোর্টারঃ-

১১ এপ্রিল রাতে লোহাগাড়া সিটি হাসপাতাল লকডাউন করা হয় কিন্তু লোহাগাড়া সিটি হাসপাতালে কর্মরত নার্স শামিমা ও শিপা (পিতাঃ আবদুল করিম) নিজ বাড়ি দক্ষিণ সুঃখছড়ী দরবার শরীফ, ব্রিজের পাশে হরির পাড়ায় অবস্থান করায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এলাকাবাসী লোহাগাড়া উপজেলা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন গতকাল রাতে লোহাগাড়া সিটি হাসপাতাল লকডাউন করা হলেও হাসপাতালে কর্মরত নার্স সামিমা ও শিপা বাড়িতে চলে আসে আর তাতেই এলাকার মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। তাই এলাকাবাসী প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানান বিষয়টি গুরুত্বসহকারে দেখার জন্য।

উল্লেখ্য চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার পশ্চিম ঢেমশা ইউনিয়নের ইছামতি আলীনগর এলাকার সিরাজুল ইসলাম(৬৯)গতবৃহস্পতিবার (৯ এপ্রিল) মারা গিয়েছিলেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে এবং এর আগে তিনি লোহাগাড়া সিটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছিলেন।

করোনাভাইরাসের লক্ষণ থাকায় জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় মৃতদেহ থেকে নমূনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠায়।

শনিবার (১১ এপ্রিল) বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে আজ মোট ৭৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ৩ জন করোনা পজেটিভ রোগী পাওয়া গেছে। এদের একজন সাতকানিয়ার সিরাজুল ইসলাম।

এবিষয়ে সাতকানিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নুর এ আলম বলেন, একজনের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসেছে তিনি ৯ এপ্রিল চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে নেওয়ার পথে মৃত্যুবর্ণ করেন এবং তার বাড়ি পশ্চিম ঢেমশা ইউনিয়নের ইছামতি এলাকায়।

সংবাদ শেয়ার করুন

themesbazartvsite-01713478536