লোহাগাড়ায় এক সন্তানের জননীর রহস্যজনক মৃত্যু! পরিবারের দাবী পরিকল্পিত হত্যা

লোহাগাড়ায় এক সন্তানের জননীর রহস্যজনক মৃত্যু! পরিবারের দাবী পরিকল্পিত হত্যা

নিজস্ব প্রতিনিধি

লোহাগাড়ায় এক সন্তানের জননীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে আজ সকালে।
তবে নিহতের পিতার দাবী তার মেয়েকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।
নিহতের নাম হীরা রানী দে (২২)। সে উপজেলার আমিরাবাদ সুখছড়ি উত্তর হিন্দুপাড়া প্রকাশ রাখাল মহাজন পাড়ার সুমন কান্তি দাশের স্ত্রী। ৬ জুন সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে এ ঘটনাটি ঘটেছে। স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, গত ৪ বছর পুর্বে চকরিয়া বরইতলী ২নং ওয়ার্ডস্থ হিন্দু পাড়ার হীরা রাণী দে`র সাথে আমিরাবাদ সুখছড়ি উত্তর হিন্দু পাড়ার সুমন কান্তি দাশের ধর্মীয়বিধি মোতাবেক পারিবারিকভাবে বিবাহ হয়। তাদের ঘরে ৩ বছরের এক ছেলে সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সবসময় ঝগড়াঝাঁটি লেগেই থাকতো। তবে ৬ই জুন সকালে হীরা হঠাৎ কিভাবে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়েছে সে ব্যাপারে সঠিকভাবে কেউ কিছু জানাতে পারেনি। নিহতের পিতা ভানু কান্তি দে জানায় বিয়ের পর থেকে মেয়ের জামাতা সুমন যৌতুকের টাকার জন্য আমার মেয়ের সাথে প্রায় ঝগড়াঝাঁটি করতো। মেয়েকে সুখে রাখতে এই পর্যন্ত তিনধাপে ৫০ হাজার টাকা করে দেড়লক্ষ টাকা দিয়েছি। গত কিছুদিন থেকে সে ব্যবসা করার জন্য টাকা লাগবে বলে আমার মেয়েকে শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন চালাতে থাকে। ঘটনার আগেরদিন রাতেও সে আমার মেয়েকে মারধর করেছে। সকালে স্থানীয় এলাকাবাসী আমাদের কে খবর দিলে আমরা এসে মেয়ের লাশ দেখতে পাই। এলাকার মানুষ আমার মেয়ের লাশটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সুমন বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট দিয়ে আমার মেয়েকে হত্যা করেছে বলে দাবি করেন নিহতের পিতা ভানু দে। তিনি আমার মেয়ে হত্যার সুষ্ঠু বিচার চাই বলে কন্নায় ভেঙে পড়েন।
ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন লোহাগাড়া থানার এসআই রুহুল আমিন। এসময় নিহতের স্বামী সুমন দাশকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানা হেফাজতে নিয়ে আসা হয়েছে বলে জানাযায়।
এসআই রুহুল আমিন বলেন সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শনপূর্বক লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল প্রতিবেদন করা হয়েছে । লাশের বাম হাতে বৈদ্যুতিক শর্টের চিহৃ রয়েছে এবং মাথায় ফুলা জখমের চিহ্ন পাওয়া গেছে । ঘটনার ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের স্বামী সুমন দাশকে থানা হেফাজতে আনা হয়েছে।
প্রাথমিক ভাবে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে মারা গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। পোস্ট মডেম রিপোর্টের পর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।

সংবাদ শেয়ার করুন

themesbazartvsite-01713478536