বেগমগঞ্জে বিবস্ত্র করে নির্যাতন ওসিসহ ৫ জনকে বরখাস্ত করার নির্দেশ

বেগমগঞ্জে বিবস্ত্র করে নির্যাতন ওসিসহ ৫ জনকে বরখাস্ত করার নির্দেশ

মোঃসামছু উদ্দিন, বিশেষ প্রতিনিধি:
নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলায় গৃহবধূকে নিজ ঘরে ধর্ষণচেষ্টায় বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনায় তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ পাঁচজনকে বরখাস্ত করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এ বিষয়ে জারি করা রুল যথাযথ করে বৃহস্পতিবার (২৮ অক্টোবর) বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার ভার্চ্যুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ এ নির্দেশ দেন।
বেগমগঞ্জ থানার তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান ছাড়া অন্যরা হলেন—উপপরিদর্শক (এসআই) হাবিবুর রহমান, সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মফিজুল ইসলাম, স্থানীয় ইউপি সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন সোহাগ ও চৌকিদার আলী আসগর।
ঘটনাটি আদালতের নজরে আনেন আইনজীবী জেড আই খান পান্না, অনীক আর হক ও আব্দুল্লাহ আল মামুন।
রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল নওরোজ মো. রাসেল চৌধুরী।
রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করে নওরোজ মো. রাসেল চৌধুরী বলেন, তৎকালীন ওসি, একজন এসআই ও এএসআইকে বরখাস্ত করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্র সচিবকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এছাড়া স্থানীয় ইউপি সদস্য এবং চৌকিদারকে বরখাস্ত করে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে এলজিআরডি সচিবকে নির্দেশ দিয়েছেন।
এর আগে গত বছরের ৫ অক্টোবর ঘটনাটি আদালতের নজরে আনার পর ফুটেজ সরাতে নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট।

সিডি বা পেনড্রাইভে কপি রেখে ভিডিও ফুটেজ সরাতে বিটিআরসির চেয়ারম্যানকে এ নির্দেশ দেওয়া হয়।
এছাড়া ওই নারীর পরিবারকে সব ধরনের নিরাপত্তা দিতে নোয়াখালীর পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দেওয়া হয়। একইসঙ্গে ঘটনার বিষয়ে ভিকটিমের বক্তব্য নিতে পুলিশের কোনো অবহেলা আছে কিনা, তা অনুসন্ধান করতে একটি কমিটি করে দিয়েছিলেন আদালত। কমিটিকে এ বিষয়ে অনুসন্ধান করে ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে হাইকোর্টের রেজিস্ট্রারের কাছে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়।

পরে আদালতের নির্দেশে কমিটির প্রধান ছিলেন চৌমুহনী সরকারি এস এ কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. আবুল বাশার। সদস্য ছিলেন নোয়াখালীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ইসরাত সাদমীন এবং জেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম চৌধুরী।

আদালতে ওই কমিটির দেওয়া প্রতিবেদনে অবহেলা পাওয়ায় জনপ্রতিনিধি, পুলিশ কর্মকর্তা ও স্থানীয় চৌকিদারের বিষয়ে আদালত যৌক্তিক ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা দিতে পারে বলে মত দেওয়া হয়। এরপর সেই প্রতিবেদনের ওপর শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার রায় দিলেন হাইকোর্ট।

সংবাদ শেয়ার করুন

সামসুজ্জামান(সেন্টু)আত্রাই (ন‌ওগাঁ) বিশেষ প্রতিনিধিঃ নওগাঁর আত্রাইয়ে গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে মোঃ সুমন খাঁ ওরফে রাকিব (১৯) নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে আত্রাই থানা পুলিশ। গ্রেফতার মোঃ সুমন খাঁ ওরফে রাকিব উপজেলার একই গ্রামের মোঃ নজরুল ইসলামের ছেলে। উপজেলার ক্ষিদ্র কালিকাপুর নামক স্থানে ঘটনা ঘটেছে।

আত্রাই থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আবুল কালাম আজাদ জানান, উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের ক্ষিদ্র কালিকাপুর (ভাটোপাড়া) গ্রামে গত শনিবার গৃহবধূ মোছা পাখী বিবি প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া দেওয়ার জন্য ঘর থেকে বাহির হওয়া মাত্রই বাড়ির পাশে উৎপেতে থাকা মোঃ সুমন খাঁ ওরফে রাকিব (১৯) ও তার সহযোগী মোঃ সিয়াম (২০) তাকে জোরপূর্বক পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

পরের দিন রবিবার (২৮ নভেম্বর) সকাল বেলা ভিকটিম বাদী হয়ে দুই জনকে বিরুদ্ধে আত্রাই থানার এজাহার দায়ের করে।

পরে পুলিশ রাতে অভিযান চালিয়ে ওই গ্রামের অভিযুক্ত ১ নাম্বার আসামী মোঃ সুমন খাঁ ওরফে রাকিবকে আটক করে। সোমবার (২৯ নভেম্বর) তাকে কোর্টে সোপর্দ করে পুলিশ।

ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আত্রাইয়ে গৃহবধূকে ধর্ষণ, আটক-১

themesbazartvsite-01713478536