করোনা কালে ফরিদপুরের বাউল শিল্পীরা রয়েছেন চরম অসহায় অবস্থায় [ পাগলা বাবলু]

করোনা কালে ফরিদপুরের বাউল শিল্পীরা রয়েছেন চরম অসহায় অবস্থায় [ পাগলা বাবলু]

মহসিন মুন্সী, ব্যুরো চীফ, ফরিদপুর।

ভালো নেই ফরিদপুরের বাউলরা। করোনাকালীন সময়ে অর্ধাহারে অনাহারে জীবন কাটছে তাদের। করোনাকালীন অবস্হায় বাউল শিল্পীদের পাশে দাঁড়ায়নি কেউ সহযোগিতার হাত নিয়ে।
একই সাথে সারাদেশে কোন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এর আয়োজন না থাকায় তাদের জীবন অনিশ্চয়তায় ভরে গেছে ।
করোনাকালীন এ দুর্যোগকালীন সময়ে তেমন কোনো মানবিক সাহায্য না পাবার কারণে জেলার বাউল শিল্পীরা খুব অসহায় অবস্থার মধ্যে সময় অতিবাহিত করছেন।

এ ব্যাপারে, ফরিদপুর লালন পরিষদের সভাপতি জনাব হাফিজুর রহমান খান ( পাগলা বাবলু ) আক্ষেপের সাথে বলেন যে আমাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন।
শিল্পী রা প্রকৃতির এক অলৌকিক অবদান, শক্তি। সেই শিল্পী, বাউল শিল্পীরা আজ অনাহারে অর্ধাহারে দিন কাটাচ্ছেন। আমরা আজ হয়তো বেঁচে আছি, জানি না আগামীকাল কি হবে এবং আমরা কিভাবে বাঁচব।

তিনি জানান মহামারী করোনা কালীন সময়ে পৌরসভার মেয়র অমিতাভ বোস তাদের ৭৫ জন শিল্পীর প্রত্যেক কে ১০০০ টাকা করে অনুদান দিয়েছিলেন। এতো একটি পরিবারের একদিনের বাজার খরচ। তারপরও মেয়র দিয়েছেন, তাই তাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন বাউল সম্প্রদায়।

ফরিদপুরের পুলিশ সুপার আলিমুজ্জামান বিপিএম তাদের তিন দফায় তিনশত বাউল ও কলাকুশলী কে খাদ্যসাহায্য দিয়ে সাহায্য করেছিলেন। তাকেও তিনি ধন্যবাদ জানান।
এছাড়া ফরিদপুর জেলা প্রশাসক অতুল সরকার শিল্পকলা একাডেমী মাধ্যমে সকল বাউল শিল্পীদের ১০০০০ টাকা দিয়েছিলেন। তার জন্যও তারা কৃতজ্ঞ।
এছাড়া সরকারি বা বেসরকারি আর কোন রকম সাহায্য সহযোগিতা তারা পাননি। এর মধ্যে তিন দফা (লাগাতার) লকডাউন চলছে।
তারা এই মুহূর্তে পরিবার-পরিজন নিয়ে ‌ খুব মানবেতার সময় অতিবাহিত করছেন।
তাদের ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া, ঘর ভাড়া ‌‌, শিক্ষকদের বেতন, বিদ্যুৎ বিল নিয়ে অত্যন্ত হতাশার মধ্যে সময় অতিবাহিত করছেন।
পাগলা বাবলু খান আরো জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন স্থানে ‌ হতদরিদ্র মানুষের জন্য যেভাবে বাড়িঘর তৈরি করে দিয়েছেন সেইভাবে ফরিদপুরের বাউল দের জন্য আবাসনের ব্যবস্থা করে দিলে তারা কৃতজ্ঞ থাকবেন। এতে করে তাদের সঙ্গীত চর্চা ও বাংলার কৃষ্টি চলমান ও অক্ষুন্ন রাখতে ভূমিকা পালন করবে। তারা এ বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জন নেত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

এছাড়া করোনাকালীন এই দুর্যোগের অবস্থার অবসান না হওয়া পর্যন্ত বাউলেরা যাতে প্রতি মাসে অন্তত কিছু ভাতা পায় সে বিষয়ে জোর দাবি জানান।

সংবাদ শেয়ার করুন

সামসুজ্জামান(সেন্টু)আত্রাই (ন‌ওগাঁ) বিশেষ প্রতিনিধিঃ নওগাঁর আত্রাইয়ে গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে মোঃ সুমন খাঁ ওরফে রাকিব (১৯) নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে আত্রাই থানা পুলিশ। গ্রেফতার মোঃ সুমন খাঁ ওরফে রাকিব উপজেলার একই গ্রামের মোঃ নজরুল ইসলামের ছেলে। উপজেলার ক্ষিদ্র কালিকাপুর নামক স্থানে ঘটনা ঘটেছে।

আত্রাই থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আবুল কালাম আজাদ জানান, উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের ক্ষিদ্র কালিকাপুর (ভাটোপাড়া) গ্রামে গত শনিবার গৃহবধূ মোছা পাখী বিবি প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া দেওয়ার জন্য ঘর থেকে বাহির হওয়া মাত্রই বাড়ির পাশে উৎপেতে থাকা মোঃ সুমন খাঁ ওরফে রাকিব (১৯) ও তার সহযোগী মোঃ সিয়াম (২০) তাকে জোরপূর্বক পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

পরের দিন রবিবার (২৮ নভেম্বর) সকাল বেলা ভিকটিম বাদী হয়ে দুই জনকে বিরুদ্ধে আত্রাই থানার এজাহার দায়ের করে।

পরে পুলিশ রাতে অভিযান চালিয়ে ওই গ্রামের অভিযুক্ত ১ নাম্বার আসামী মোঃ সুমন খাঁ ওরফে রাকিবকে আটক করে। সোমবার (২৯ নভেম্বর) তাকে কোর্টে সোপর্দ করে পুলিশ।

ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আত্রাইয়ে গৃহবধূকে ধর্ষণ, আটক-১

themesbazartvsite-01713478536