সেনবাগে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে লাখ টাকা চাঁদা নেওয়ার অভিযোগ।

সেনবাগে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে লাখ টাকা চাঁদা নেওয়ার অভিযোগ।

সামছুদ্দিন, বিশেষ প্রতিনিধি

নোয়াখালী জেলার সেনবাগ উপজেলার ৭ নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাজ্বী রুহুল আমিন ভৃইয়া বিরুদ্ধে এবার রাস্তা করে দেওয়ার কথা বলে এক লাখ টাকা চাঁদা নেওয়ার অভিযোগ এনে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে সেনবাগ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সাইফুল ইসলাম মজুমদারের নিকট এলাকাবাসী পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ করেছে আবদুল মালেক নামের এক ব্যাক্তি।

লিখিত অভিযোগে ৭ নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ড পূর্ব মোহাম্মদপুর মাষ্টার পাড়া ফোড়া মিঝি বাড়ি প্রকাশ ( তাল্লালা) বাড়ির প্রায় ১২’শ ফুট লম্বা দরজাটি ফ্লাট সলিং করে দেয়া কথা বলে বাড়ির লোকজনের নিকট থেকে একলক্ষ টাকা চাঁদা নেন চেয়ারম্যান হাজ্বী রুহুল আমিন ভূইয়া। তিনি মাষ্টার পাড়া সড়কের মুখ থেকে মাত্র তিনশ ফুট রাস্তার ইটের ফ্লাট সলিং করে অবশিষ্ট বাড়ির দরজাটি ফেলে রাখে। বাড়ির লোকজন তার নিকট একাধিক বার গেলে তিনি রাস্তাটি করে দিব দিচ্ছি বলে বিগত ৭/৮ মাস যাবত গোরাগুরি করে। এতে বাড়ির লেকজন নিরুপায় হয়ে এর প্রতিকার চেয়ে সেনবাগ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট লিখিত অভিযোগ দাখিল করে।

অভিযোগে বলা হয় চেয়ারম্যান তাদের বাড়ির রাস্তাটি করে দিবে বলে একলক্ষ টাকা নেন। তারা ওই টাকা জোগাড় করতে তাদের বাড়ির অংশিদারী পুকরের মাছ বিক্রি করে ও পুকুর ইজারা দিয়ে চেয়ারম্যানকে একলক্ষ টাকা দেন। কিন্তু চেয়ারম্যান ওই বাড়ির রাস্তাটি করে না দেওয়ায় বাড়ির লোকজন তাদের রাস্তাটি সলিং করে দেওয়া অথবা তাদের দেওয়ায় একলক্ষ টাকা পেরত দেওয়ার দাবিতে নারী পুরুষ ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন করে।

এরআগে ওই চেয়ারম্যান একই ইউপির ৫ নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের কল্যান্দী শাহাজীরহাট দুর্গামন্দীর সড়ক থেকে সুবল সাহার বাড়ির দরজায় পর্যন্ত এলজিএসপি-৩ অর্থায়নে ৬২০ ইটের ফ্লাট সলিং করার কাজ শুরু করে। এক পর্যায়ে চেয়ারম্যান ওই বাড়ির লোজজনের নিকট ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে। তার দাবিকৃত টাকা না পেয়ে এক পর্যায়ে চেয়ারম্যান তার লোকজন দিয়ে প্রায় ১২০ ফুট রাস্তার ইটের এজিন তুলে নিয়ে যান। এ বিষয়টি একাধিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর বিষয়টি তদন্তে সেনবাগ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সাইফুল ইসলাম মজুমদার স্বক্ষরিক স্বারক নং ০০.৪২.৭৫৮০.০০০.০৬..০১৬.২০ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মানষ মন্ডলকে প্রধান করে এক সদস্য বিশিষ্ঠ কমিটি গঠন করেন।

এব্যাপারে ৭ নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাজ্বী রুহুল আমিন ভৃইয়া সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বরাদ্দকৃত রাস্তাটির কাজ সমাপ্ত করছেন বলে জানান। একলাখ টাকা চাঁদা নেওয়ার কথা জিজ্ঞেস করলে তিনি টাকা নেওয়ার কথা অস্বীকার করেন।এব্যাপারে সেনবাগ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সাইফুল ইসলাম মজুমদারের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে জানান, এবিষয়ে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংবাদ শেয়ার করুন

themesbazartvsite-01713478536