ফেসবুক-ইউটিউব জগতে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চান : রবিউল হোসাইন রবিন। Darpon TV

ফেসবুক-ইউটিউব জগতে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চান : রবিউল হোসাইন রবিন। Darpon TV


এমডি ইলিয়াস সেনবাগ প্রতিনিধি
রবিউল হোসাইন রবিন, বাংলাদেশের একজন শিল্পী উদ্যোক্তা এবং ডিজিটাল মার্কেটার । তিনি Deep Sadistic নামে একটি মিউজিক এর প্রতিষ্ঠাতা। তিনি একজন উদ্যোক্তা, ব্লগার, ইউটিউবার এবং Deep Sadistic এর প্রতিষ্ঠাতা।
রবিউল হোসাইন রবিন ১৮ বছর বয়সে সঙ্গীত রচনা শুরু করেছিলেন, তিনি সংগীত সম্পর্কিত বিভিন্ন চিন্তাভাবনা শিখেছিলেন এবং একজন সফল সংগীতশিল্পী হয়েছিলেন এবং তিনি একজন সফল উদ্যোক্তাও।

ব্যক্তিগত জীবন
– – – – – – –
রবিউল হোসাইন রবিন এর জন্ম নোয়াখালী,সেনবাগ থানায়, জুন-১৯৯৮ সালে। তিনি একজন নামী এবং সফল উদ্যোক্তা। তিনি একজন বাংলাদেশী ইউটিউবার, সংগীতশিল্পী এবং ব্যবসায়ের মানুষ রবিন তাঁর ও তাঁর জীবনযাত্রার উপযোগী কাজের প্রতি অনুরাগী ছিলেন। তিনি বিভিন্ন ও নৈতিক অনুশীলনে নতুন জিনিস অনুসন্ধানে অভ্যস্ত ছিলেন যা উপযুক্ত বলে মনে হয়েছিল এই যুগে যেখানে লোকেরা কেবল অর্থ উপার্জন এবং জীবনে খ্যাতি অর্জনের দিকে মনোনিবেশ করে, সেখানে এক মিনিটের পরিমাণ লোক রয়েছে যারা অর্থ, খ্যাতি নির্বিশেষে তাদের স্বপ্নগুলি জীবনযাপন করছে , এবং গৌরব। রবিউল হোসাইন রবিন, অন্যতম প্রতিভাধর ব্যক্তি যারা একজন উদ্যোক্তা এবং সংগীত শিল্পী হিসাবে নিজের নাম তৈরি করেছেন।
উদ্যোক্তা এমন একটি জিনিস যা গত কয়েক বছরে বিখ্যাত হয়ে উঠেছে। শ্রেষ্ঠত্ব শুরু হওয়ার পরে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সামাজিক হওয়া কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা মানুষ খুব একটা সচেতন ছিল না। সোশ্যাল মিডিয়া সংযোগটি আরও গুরুত্বপূর্ণ, এবং এই জিনিসটি তিনি সবচেয়ে ভাল করছেন।

ক্যারিয়ার
– – – – – – –
ইতোমধ্যে আন্তর্জাতিক সংগীত প্ল্যাটফর্ম ইউটিউব, টিকটক এবং স্পটিফাইয়ের অফিসিয়াল শিল্পী হিসাবে ভেরিফাইড করা হয়েছে রবিন কে। ২০২১ সালের জুন ইউটিউবে অফিসিয়াল শিল্পী চ্যানেল হিসেবে ভেরিফায়েড হয়েছিল তার চ্যানেল এবং সম্প্রতি তিনি স্পটিফাই থেকে শিল্পী যাচাই-বাছাইয়ে স্থান পেয়েছেন।

তিনি ২০১৬ সালে তার সংগীত ও ডিজিটাল বিপণন একটি ডিজিটাল বিপণন সংস্থা ‘Deep Sadistic Digital Media’ এর মাধ্যমে শুরু করেছিলেন। ডিজিটাল মিডিয়ায় নিজের ভবিষ্যত পরিকল্পনা সম্পর্কে রবিন বলেন, আমি প্রচুর প্রোডাকশন হাউসের সঙ্গে কাজ করেছি তবে এখন নিজের ইউটিউব চ্যানেলে কাজ করার সময় এসেছে।

করোনা পরিস্থিতিতে ডিজিটাল মাধ্যমে কাজের অবস্থা সম্পর্কে তিনি বলেন, মহামারী পরিস্থিতিতে বাড়ির বাইরে স্বাভাবিক কাজ করা সম্ভব নয়। আপনি যদি কোনও প্রযোজনা সংস্থায় কাজ করতে চান তবে আপনাকে সেখানে যেতে হবে। তাই আমি এই মুহূর্তে ইউটিউব, স্পটিফাই এবং আইটিউনস এবং সমস্ত স্ট্রিমিং অ্যাপ্লিকেশনগুলির মাধ্যমে বাড়িতে থেকেই গান প্রকাশের চেষ্টা করছি। এ অবস্থায় এগুলোই সেরা মাধ্যম বলে মনে করি।

রবিউল হোসাইন রবিন এর পরিকল্পনা স্পোটিফাই, আইটিউনস, অ্যাপল, অ্যামাজন, টিডাল, ডিজারসহ অন্যান্য সমস্ত আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্মে তার গানগুলি সংরক্ষণ করার এবং ভবিষ্যতে তার মতো দেশের অন্যান্য শিল্পী উদ্যোক্তারাও এইভাবে তাদের গান প্রকাশ করবেন। তিনি বলেন, আমি এখন থেকেই শুরু করেছি।

সংবাদ শেয়ার করুন

ইব্রাহিম সুজন, নীলফামারী প্রতিনিধ

নীলফামারীর সৈয়দপুরে জমিজমা সংক্রন্ত বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের সাজানো মিথ্যা মামলায় ফেলে এক নিরীহ পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে-নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলা কয়াগোলাহাট ঘোনপাড়া এলাকায়৷ অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বিগত ৭৯ বছর পূর্বে বসতি স্থাপন করে স্থানীয়রা রাস্তার উপর দিয়ে চলাচল করে আসছি৷ সম্প্রতি পারিবারিক কলহের জেরে চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে প্রতিপক্ষ৷ পরবর্তীতে ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে পুলিশ এসে রাস্তা খুলে দিলেও পুলিশ চলে যাবার পরে রাস্তাটি পুনরায় বন্ধ করে দেয় প্রতিপক্ষ৷ পরবর্তী স্থানীয়দের সহোযোগিতায় বাড়ির বিকল্প রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করলেও গত ২৬র্মাচ এ বিকল্প চলাচলের রাস্তাটিও বন্ধ করে দেয়া হয় । এতে বাধা দিলে সিরাজুল ইসলাম ও তার ভাই আজিজুল হক ও শফিকুল ইসলামের পরিবার এ-র উপর আতর্কিত হামলা করে বাড়ী ঘরের বেড়া, চেয়ার, টেবিল ভাংচুর করে ধারালো অস্ত্রসহ(হাচুয়া,বটি,দা) লোহার মোটা পাইপ দিয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট করে প্রতিপক্ষ সিরাজুলরা। আহতদের অবস্থা গুরুতর হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুরে নেয়া হয় (ওসিসি বিভাগের রিপোর্টের ভিত্তিতে সিরাজুল ও শফিকুলদের আসামী করে সৈয়দপুর থানায় মামলা করে ভুক্তভোগী পরিবারটি৷ এদিকে, মামলাটি থানায় দেয়ার পর থেকেই ভুক্তভোগী পরিবারটির উপর বিভিন্ন ধরনের হুমকী ধামকি বিদ্যমান রেখেছে প্রতিপক্ষ৷ ভুক্তভোগী পরিবারের আতিয়ার রহমান খোশো বলেন, আমি রংপুর বিভাগের রংপুর বীর উত্তম শহীদ সামাদ স্কুল এন্ড কলেজের বিজ্ঞান বিষয়ক সহকারী শিক্ষক । ঘটনার দিন আমি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত ছিলাম, এই মর্মে প্রতিষ্ঠান প্রিন্সিপাল মহোদয় প্রত্যায়ন পত্র প্রদান করেন। শফিকুলেরা অপরাধ সংঘটিত করে আগেই মামলা দায়ের করেন৷ আমি উপস্থিতি না থাকলেও আমাকে আসামির শ্রেনীভুক্ত করা হয়েছে৷ এমনকি, সৈয়দপুর পুলিশ ফাঁড়িতে আমার কল রেকর্ড আছে এবং ঐ কল রেকর্ড ট্রাকিং করে দেখা গেছে আমি ঐদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ২৬ শেষ মার্চের জাতীয় অনুষ্ঠানে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনে যুক্ত ছিলাম, শুধু মাত্র আমাকে হয়রানি করার জন্য এবং আমার সন্মান হানি করার জন্য হয়রানি মূলক মিথ্যা সাজানো মামলা করা হয়েছে৷ এ অভিযোগ প্রসঙ্গে শিক্ষকের বিরুদ্ধে করা মামলার বাদী শফিকুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, আতিয়ার রহমান খোশো তাদের সম্পর্কে আত্মীয় আমাদের সাথে জগড়া লাগলে তিনি তাদের পরামর্শ ও শেল্টার দেন। তাই ওনাকে আসামি করা হয়েছে। আমাদের জমিজমা নিয়ে বিরোধ আছে। তারাও আমাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে তাই আমরাও তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছি৷ তবে, মামলার সূষ্ঠ তদন্ত দাবি করেন সহকারী শিক্ষক আতিয়ার রহমানসহ অন্যান্য ভুক্তভোগীর।

নীলফামারীতে মিথ্যা মামলায় ফেলে নিরীহ পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ

themesbazartvsite-01713478536