বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভা শেষে যা জানা গেলো

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভা শেষে যা জানা গেলো

মহসিন মুন্সী, ব্যুরো চীফ।

কিছু দিন আগে ডিপিএলে ঘটে যায় অবিশ্বাস্য ঘটনা। তার মুল কারন ছিলো আম্পায়ারিং। আম্পায়ারিং নিয়ে সাকিব আল হাসান ক্ষোভ প্রকাশের পর ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ (ডিপিএল) বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। বিষয়টি জানিয়েছেন তিনি নিজেই।
মঙ্গলবার (১৫ জুন) বিসিবির বোর্ড সভা শেষে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে পাপন জানান, ‘ডিপিএলে কখনও আম্পায়ারিং নিয়ে কোনো অভিযোগ আসেনি, কিন্তু এবার একটা ঘটনা ঘটেছে। এই ঘটনার পর আমি চেয়েছিলাম টুর্নামেন্ট বন্ধ হয়ে যাক।’তিনি জানান, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের অংশ হিসেবে তার নামকরণে টুর্নামেন্ট আয়োজিত বলে সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেন তিনি।
এ সময় বোর্ড সভাপতি জানান, ডিপিএলের আম্পায়ারিং নিয়ে অংশগ্রহণকারী ১২ দলের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। গত ২-৩ দিন তদন্তের পর বিসিবিকে এমনই প্রতিবেদন দিয়েছে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি। সাকিবকে জরিমানা করা হলেও আম্পায়ারিং ইস্যু নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় নড়েচড়ে বসে বিসিবি। এর ধারাবাহিকতায় পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে ডিপিএলের আম্পায়ারিংয়ের মান যাচাই ও অভিযোগ-পরামর্শ শোনার প্রক্রিয়া শুরু হয়।

অনেক সময় বিভিন্ন কারনে দেখা যায় জাতীয় দলে সুযোগ না পাওয়া ক্রিকেটাররা নিয়মিত অনুশীলন করতে পারে না। বাংলাদেশ জাতীয় দলের কোনো ক্রিকেটার ইনজুরিতে পড়লে বা সিরিজ থেকে নাম সরিয়ে নিয়ে বিকল্প ক্রিকেটার নিয়ে ঝামেলায় পড়তে হয় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে (বিসিবি)।এই সমস্যার সমাধানে একটি ছায়া দল গঠন করছে বিসিবি। যার নাম দেয়া হয়েছে বাংলাদেশ টাইগার। সেখানে জাতীয় দলের মতোই থাকবে ক্রিকেটারদের নির্ধারিত পজিশন।
এখান থেকেই বিবেচনা করা হবে জাতীয় দলের জন্য প্রয়োজনীয় ক্রিকেটারদের। এ ছাড়া জাতীয় দলের বাইরে থাকা ক্রিকেটাররা অনেক সময় অনুশীলন সুবিধা থেকেও বঞ্চিত হন। জাতীয় দলের বাইরে ক্রিকেটারদের কথা চিন্তা করে তাদের যাতে সঠিক পথে রাখা যায় তাই নতুন দল গঠন করতে যাচ্ছে বিসিবি। বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অনিয়মিত এবং বাদ পড়াদের নিয়ে একটি ছায়া জাতীয় দল তৈরির কথা আগেই ভেবেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড-বিসিবি। অবশেষে আজকের বোর্ড সভায় সেটির অনুমোদন দেওয়া হলো। এর ফলে এখন থেকে জাতীয় দলের রাডারে থাকা ক্রিকেটারদের অনুশীলন সুবিধাদি নিয়ে আর ভাবতে হবে না।

বিসিবি সভাপাতি জানতে পেরেছিলেন মিরপুর শের-ই-বাংলায় পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধার অভাবে জাতীয় দল থেকে বাদ পড়া ক্রিকেটাররা অনুশীলন করতে গিয়ে বিসিবি’র সুযোগ সুবিধা পান না। তাদের কথা ভেবেই মূলত এই পদক্ষেপ নিয়েছে টাইগার ক্রিকেট প্রশাসন। দলের নামকরণ করা হয়ছে বাংলাদেশ টাইগার।এই দলে যারা থাকবেন তারা নিয়মিত বিসিবি’র অনুশীলন সুবিধাদি নিতে পারবেন। বছরের ৩৬৫ দিন ২৪ ঘণ্টা তারা নিবিড় অনুশীলনে নিজেদের জাতীয় দলের জন্য তৈরি করতে পারবেন।

এটার ব্যাকগ্রাউন্ড হচ্ছে, “জাতীয় দলে যারা ডাক পায় তারা যখন সাময়িক দলের বাইরে থাকে যেমন কখনো ইমরুল, কখনো সৌম্য থাকে না ওরা নাকি আমাদের এখানে অনুশীলন করতে পারে না।
মানে আমাদের সুবিধাদি ব্যবহার করতে পারে না। সেটা তো একটা বড় সমস্য। তাহলে ওরা কোথায় অনুশীলন করবে? কারো যদি কোনো ঘাটতি থাকে শিখবে কোথায়? এটা থেকে আমরা ঠিক করেছি সারা বছর ২৪ ঘণ্টা এখানে অনুশীলন চলবে। স্থানীয় কোচ দিয়ে করাব, হেড কোচের নির্দেশ ক্রমে”।

সংবাদ শেয়ার করুন

themesbazartvsite-01713478536