সরকারি কর্মকর্তাদের সাংবাদিকরা স্যার বলে ডাকতে বাধ্য নন-রিয়াজুল ইসলাম প্রচার সম্পাদক বনানী প্রেসক্লাব,ঢাকা

সরকারি কর্মকর্তাদের সাংবাদিকরা স্যার বলে ডাকতে বাধ্য নন-রিয়াজুল ইসলাম প্রচার সম্পাদক বনানী প্রেসক্লাব,ঢাকা

সরকারি কর্মকর্তাদের সাংবাদিকরা স্যার বলে ডাকতে বাধ্য নন। কেননা স্যার একটি অতি সম্মানসূচক শব্দ। যে কেহ, যে কাউকে এটা সম্মোধন করতে পারে। তবে বিসিএস ক্যাডাররা নিজেকে ভিআইপি দাবি করে গণমাধ্যম কর্মীদেরকে কখনো (স্যার) বলতে বলবেন না। আপনি (আপনারা) প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী। সুতরাং সমস্ত বিসিএস কর্মকর্তাদের কাছে আমার একটাই মেসেজ সাংবাদিকরা আপনাদের স্যার বলতে যাবেনা।

আপনারা হয়তো ভুলে গেছেন গত বছর মহামান্য আদালত বলেছিলেন, দেশে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী ছাড়া কেহ ভিআইপি নয়। আপনি বলছেন এ চেয়ারে অনেক কষ্ট করে বসতে হয়েছে। আমার প্রশ্ন হল সরকারকি আপনাকে ঐ চেয়ারটিতে বেতন ছাড়া বসিয়েছে ? লেখাপড়া করে বিসিএস ক্যাডার হয়েছেন তো কি হয়েছে। স্বাক্ষর করে বড় বড় পুকুর চুরি তো আপনারাই করেন, তখন মনে থাকেনা সম্মানের কথা ?

দূর্নীতির বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করায় গভীর রাতে অবৈধভাবে মোবাইলকোর্ট বসিয়ে সাংবাদিকদের সাজা প্রধান করলেই বিসিএস ক্যাডার তথা দায়িত্ববান অফিসার হওয়া যায়না। লেখাপড়া করলেই সাংবাদিকদের কাছে সম্মানিত হওয়া যায়না বা হতে পারেনা সবাই। ভিখারির মত সম্মান চেয়ে চেয়ে নিবেন না এবং বিসিএস ক্যাডার মর্যাদাটাকে পাড়ার পাতি ক্যাডারদের মত যেখানে সেখানে ব্যবহার করতে যাবেন না প্লীজ।

মনে রাখবেন, মান-সম্মান কখনো ক্ষমতা বা টাকা-পয়সা দিয়ে কেনা যায়না। তাকে অর্জন করতে হয় নিজের নৈতিকতা,শিষ্টতা পারিবারিক শিক্ষা ও আত্মসম্মান বোধ দিয়ে। সাংবাদিকরাও তো সাংবাদিকতা করছে লেখাপড়া করে। তাহলে আপনাদের কেন স্যার বলে সম্মােধন করতে হবে ? সুতরাং সাংবাদিকদের স্যার বলে সম্মােধন আপনারাই করুন,সাংবাদিকরা নয় ।

লেখক
রিয়াজুল ইসলাম
প্রচার সম্পাদক
বনানী প্রেসক্লাব, ঢাকা

সংবাদ শেয়ার করুন

themesbazartvsite-01713478536