গঙ্গাকান্দী জিন্দাপীর তলা ব্রীজ এখন মরণ ফাঁদ।

গঙ্গাকান্দী জিন্দাপীর তলা ব্রীজ এখন মরণ ফাঁদ।

নওগাঁর চুন্ডিপুর দুদুর মোড় থেকে ত্রীমোহনী যাওয়ার একমাত্র রাস্তাটিতে গঙ্গাকান্দী জিন্দাপীর তলা ব্রীজ এখন মরণ ফাঁদ।

অন্তর আহম্মেদ নওগাঁ জেলা প্রতিনিধিঃ নওগাঁর চুন্ডিপুর দুদুর মোড় থেকে ত্রীমোহনী যাওয়ার একমাত্র রাস্তাটিতে গঙ্গাকান্দী জিন্দাপীর তলা বিধ্বস্ত এই ব্রিজটির একদম বিকলাবস্থা না থাকায় চলাচলের যেকোন সময়ে ঘটতে পারে প্রাণহানির মতো দুর্ঘটনা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ব্রিজের উপরের সিমেন্টের তৈরি পাটা ধসে যাওয়ায় এ রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী যানবাহন রিকশা ভ্যান, নসিমন-করিমন পিকাপভ্যানসহ অন্য অন্য গাড়ি গুলো অনেক সময় ঝুঁকি নিয়েই পার হতে গিয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়ছেন চালকরা।

ব্রিজটির বেহাল দশা প্রায় এক বছর যাবত। ব্রিজের উপরের পাটা ধসে পড়ায় স্থানীয় সরকার বিভাগ তেমন কোনো তৎপরতা না থাকায় নওগাঁ সদর চুন্ডিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বেদারুল ইসলাম মুকুল নিজ অর্থায়নে সিমেন্ট বালু দিয়ে সাময়িকভাবে মেরামত করে দেন। কিন্তু যোগাযোগের তাগিদে প্রতিনিয়ত ব্রিজ দিয়ে যানবাহন চলাচলের কারণে এখন ভাঙনের পরিমান আরও বেড়ে গেছে।

স্থানীয় বাসিন্দা বেলাল হোসেন বলেন, অনেক দিন আগে নির্মিত এই সেতুটি ভালোই ছিলো কিন্তু এক বছর হয়েছে ব্রিজ মাঝস্তর কিছু অংশ ধসে পরেছে, ব্রিজটি মেরামতের জন্য সংশ্লিষ্ট দফতরের কোনো মাথা ব্যাথাই নেই। মেরামত হবে কিনা তাও জানা নেই।

এই বিষয়ে চুন্ডিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বেদারুল ইসলাম মুকুল বলেন, আমি নিজ উদ্যগে স্থানীয় লোকজন নিয়ে কিছু অংশ মেরামত করেছি ভারী ভারী যানবাহন চলাচল করার কারণে নষ্ট হয়ে গিয়েছে। ব্রীজ বিষয়ে উপজেলা সমন্বয় মিটিংয়ে আলোচনা হয়েছে এবং ব্রিজটির বিষয়ে দ্রুত একটা উদ্যোগ নেওয়র অনুরোধ জানিয়েছি।

এব্যাপারে নওগাঁ স্থানীয় সরকার বিভাগের উপজেলা প্রকশৌলী ইমতিয়াজ জাহিরুল হক বলেন, ব্রীজ টি অনেক পুরাতন ১৯৬২সালের তৈরী এই কারণে ব্রীজটি ভেঙ্গে নতুন করে ব্রীজ তৈরীর বিষয়ে ক্ষুদ্র আকার পানি ব্যাবস্থপনা সম্পাদ বিভাগে প্রকল্প নেওয়া হয়েছে, যে কোন সময়ে অনুমোদন হলে নতুন করে সুইচ গেট সহ ব্রীজ তৈরী করা হবে।

অন্তর আহম্মেদ
নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি
০১৭৭১০৮৮৮০৮

সংবাদ শেয়ার করুন

themesbazartvsite-01713478536