প্রবাসীদের জন্য কঠোর নিয়ম করেছে সৌদি, সমস্যায় বাংলাদেশিরা

প্রবাসীদের জন্য কঠোর নিয়ম করেছে সৌদি, সমস্যায় বাংলাদেশিরা

করোনার ভাইরাসের জন্য প্রবাসীদের সৌদি আরবে যাওয়ার পর সাত দিন নিজ খরচে হোটেলে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। সৌদি আরব এমন ঘোষণার দেয়ার পর বৃহস্পতিবার (২০ মে) থেকে ২৪ মে পর্যন্ত দেশটির সঙ্গে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।

সৌদি আরবের পাবলিক প্রসিকিউশনের নতুন নিয়ম অনুযায়ী, কেউ যদি করোনাভাইরাস ছড়ায় তাকে পাঁচ বছরের জেল এবং সর্বোচ্চ ৫ লাখ সৌদি রিয়াল জরিমানা করা হবে। যদি সেই ব্যক্তি প্রবাসী হয় তবে তাকে শাস্তি দেওয়ার পর সৌদি আরব থেকে বিতাড়িত করা হবে। আর ওই ব্যক্তি কোনও দিন সৌদি আরবে আসতে পারবে না।

এই সব হিসেব নিকেশে বিপাকে পড়েছেন সেখানকার প্রবাসী বাংলাদেশিরা। বাধ্যতামূলক হোটেল কোয়ারেন্টাইনের নিয়ম শিথিল করে ঘরে কোয়ারেন্টাইনের সুযোগ করে দেয়ার দাবি করেছেন তারা।

হোটেল বুকিং আর ইনস্যুরেন্স যদি না থাকে সৌদিগামী ফ্লাইটের বোর্ডিং পাস পাওয়া যাবে না কিছুতেই,। গত ১০ মে সৌদি সরকারের এ বিধিনিষেধ সৌদি আরবের জেনারেল অথরিটি অব সিভিল অ্যাভিয়েশন বিভিন্ন এয়ারলাইন্সকে এ তথ্য জানিয়েছে। বলা হয়েছে, যারা করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নেননি, তারা সৌদি আরবে প্রবেশ করলে সাত দিন হোটেলে বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। আর হোটেলের ব্যয়ও বহন করতে হবে যাত্রীকেই।

এমন পরিস্থিতিতে আগামী ২০ মে হতে ২৪ মে পর্যন্ত বিমানের সৌদিগামী সকল ফ্লাইট স্থগিত করা হয়েছে। এতে একদিকে যেমন বিপাকে পড়েছেন এ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সৌদিতে আসতে চাওয়া প্রবাসীরা অন্যদিকে সেখানে অবস্থা করা বাংলাদেশিরাও ফিরতে পারছেন না দেশে। এ অবস্থায় কোয়ারেন্টাইনের বিধিনিষেধ শিথিল করার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

যাত্রীদের বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের জন্য হোটেল বুকিং এয়ারলাইন্সের মাধ্যমে করার নির্দেশনাও দিয়েছে জেনারেল অথরিটি অব সিভিল অ্যাভিয়েশন।

যারা ভ্যাকসিন নিয়েছেন তাদের ভ্যাকসিন নেওয়ার প্রমাণপত্র সঙ্গে রাখতে হবে। তবে ফাইজার-বায়োএনটেকের ২ ডোজ, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ২ ডোজ, মডার্না ২ ডোজ এবং জনসন অ্যান্ড জনসনের টিকার ১ ডোজ যারা নিয়েছেন তারা হোটেলে বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকার বদলে বাসায় কোয়ারেন্টিনে থাকার সুবিধা পাবেন।

সংবাদ শেয়ার করুন

এমডি ইলিয়াস সেনবাগ প্রতিনিধি

নোয়াখালীর সেনবাগে গাছের নিচে চাপা পড়ে মোঃ ইব্রাহিম (৩৫) নামে এক পাওয়ার টিলার (হ্যান্ড ট্রাক্টর) চালক নিহত হয়েছে। সোমবার বেলা সাড়ে ১১ টার সময় সেনবাগ উপজেলার ৩নং ডমূরুয়া ইউনিয়নের এনায়েতপুর গ্রামে ওই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্থানীয় চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন। সোমবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে ইব্রাহিম উপজেলার এনায়েতপুর গ্রামের আবুল খায়ের আর্মির বাড়ি থেকে বিক্রির জন্য কিছু গাছ ক্রয় করে। গাছ গুলো কেটে হ্যান্ড ট্রাক্টরে ওঠাতে গিয়ে অসাবধানতা বসত একটি গাছের গুড়ির নিছে চাপা পড়ে তার ঘাড় ভেঙ্গে যায়। এসময় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে সেনবাগ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত ইব্রাহিমের বাড়ি ময়মনসিংহ জেলার ফুলপুর উপজেলার বালিয়ারা গ্রামে। সে ওই গ্রামের ইমান আলীর ছেলে। দীর্ঘদিন যাবত সে সেনবাগের ডমূরুয়া ইউপির তথ্য সেবা কেন্দ্রের উদ্যোক্তা মোঃ সোলেমানের বাড়িতে ভাড়া থাকতো।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করলে সেনবাগ সেনবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবদুল বাতেন মৃধা জানান এধরণের একটি দুর্ঘটনার সংবাদ জেনেছেন। বিষয়টি তাঁরা খোঁজ খবর নিচ্ছেন।

সেনবাগে গাছের চাপায় ট্রাক্টর চালক নিহত!!!

themesbazartvsite-01713478536