গোয়াইনঘাটে স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন, ঘাতক আটক

গোয়াইনঘাটে স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন, ঘাতক আটক


স্টাফ, রিপোর্টার সিলেট থেকে: সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলায় স্ত্রী হত্যার দায়ে
স্বামীকে আটক করেছে গোয়াইনঘাট থানা পুলিশ। ১২ বুধবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে তোয়াকুল ইউনিয়নের বীরকুলি গ্রামে নিজাম উদ্দিনের বাড়িতে এঘটনা ঘটে। স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, প্রায় ৬ বছর পূর্বে গোয়াইনঘাট উপজেলার তোয়াকুল ইউনিয়নের বীরকুলি( হাওর) গ্রামের নিজাম উদ্দিনের মেয়ে আলিমা বেগমকে বিয়ে করে বিয়ানীবাজার উপজেলার শেওলা আদর্শ গ্রামের মনসব আলীর ছেলে সিদ্দিক আহমদ। বিয়ের পর তাদের সাংসারিক জীবন সুখেই চলে। আলিমা- সিদ্দিক দম্পত্তির ৫ বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।
আলিমা- সিদ্দিক দম্পত্তির মধ্যে কিছু দিন ধরে পারিবারিক কলহের সৃষ্টি হয়। বিগত দুই/তিন দিন ধরে সিদ্দিক ও তার স্ত্রী আলিমা বেগম তোয়াকুল ইউনিয়নের বীরকুলি হাওর অর্থাৎ আলিমা বেগমের পিতার বাড়ি অবস্থান করছিলেন। পারিবারিক কলহের সুত্র ১২মে (বুধবার) দিবাগত রাত্রে দেড়টার দিকে সিদ্দিক আহমদ তার স্ত্রী আলিমা বেগমকে ধারালো ছুরি দিয়ে কয়েকটি আঘাত করে। ছুরির আঘাতে আলিমা বেগমের অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। অপর দিকে সিদ্দিক আহমদ পালিয়ে যায়। উক্ত ঘটনার খবর পেয়ে গোয়াইনঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুল আহাদ সালুটিকর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর মোঃ শফিকুল ইসলাম খানকে ঘটনাস্থলে প্রেরন করেন। তাছাড়া স্ত্রী হত্যা করে পালিয়ে যাওয়া সিদ্দিক আহমদকে আটক করতে জোর তৎপরতা চালান। ১৩ মে (বৃহস্পতিবার) ভোর ৫ টায় গোয়াইনঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুল আহাদ, সেকেন্ড অফিসার প্রলয় রায়,সালুটিকর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের টু-আইসি এসআই জহিরুল ইসলাম, এএসআই মহিউদ্দিন স্থানীয় জনতার সহযোগিতায় কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার খাইগাইল গ্রাম থেকে সিদ্দিক আহমদকে আটক করেন। পুলিশি সূত্রে জানা যায়, বুধবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে তোয়াকুল ইউনিয়নের বীরকুলি হাওরে বিয়ানীবাজার উপজেলার শেওলা আদর্শ গ্রামের সিদ্দিক তার শশুড় বাড়ি বেড়াতে এসে স্ত্রী আলিমা বেগমকে খুন করে পালিয়ে যায়। সিদ্দিক আহমদ পালিয়ে যাওয়ার একমাত্র রাস্তা নন্দীরগাঁও ইউনিয়নের মানাউরা ও নন্দীরগাঁও হওয়ায় নন্দীরগাঁও ইউনিয়নের বাসিন্দা ও গোয়াইনঘাট প্রেসক্লাবের সভাপতি এম এ,মতিনকে অনুরোধ করা হয়, মানাউরা ও নন্দীরগাঁও গ্রামের প্রতিটি মসজিদে সিদ্দিক পালিয়ে যাওয়ার সংবাদটি মাইকিং করতে। সে অনুযায়ী প্রতিটি মসজিদে মাইকিং করা হলে উভয় গ্রামের প্রতিটি মানুষ সিদ্দিকের খোঁজে রাস্তায় বাহির হন। রাস্তায় বাহির হয়ে কোথাও সিদ্দিকের সন্ধান না পেয়ে যার-যার পরিচিত জনের কাছে সংবাদটি পৌঁছান। এরই ধারাবাহিকতায় কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ রনীখাই ইউনিয়নের দরাকুল গ্রামের নুর মিয়া খবর পেয়ে লোকজন নিয়ে রাস্তায় বাহির হয়ে দেখতে পান একটি লোক দৌড়ে পালাচ্ছে। তারা তাড়া করে সিদ্দিক আটক করতে না পেরে পার্শ্ববর্তী খাগাইল গ্রামে খবর পৌঁছান। সিদ্দিক খাগাইল গ্রামে পৌঁছামাত্র ওই স্থানে পুলিশ টীম পৌছে যায়। তারপর পুলিশ ও জনতা মিলে সিদ্দিক আটক করেন। এব্যাপারে গোয়াইনঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুল আহাদ বলেন, বিয়ানীবাজার উপজেলার শেওলা আদর্শ গ্রামের সিদ্দিক নামের একজন যুবক স্ত্রী আলিমা বেগমকে নিয়ে তার শশুর বাড়ি গোয়াইনঘাট উপজেলার তোয়াকুল ইউনিয়নের বীরকুলি হাওর গ্রামে বেড়াতে আসে। পারিবারিক কলহের ঝেরে আলিমা বেগমকে ধারালো ছুরি দিয়ে আঘাত করলে সে ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। অপর দিকে সিদ্দিক পালিয়ে যায় পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ রনীখাই ইউনিয়নের খাগাইল গ্রাম থেকে সিদ্দিককে আটক করা হয়। আলিমার লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য তার লাশ সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে। তবে উক্ত ঘটনার বিষয়ে এখনো লিখিত অভিযোগ থানায় পৌঁছায়নি।

সংবাদ শেয়ার করুন

themesbazartvsite-01713478536