হাতিয়ায় ইউপি সদস্য প্রার্থীকে কুপিয়ে হত্যা,আটক ৭

হাতিয়ায় ইউপি সদস্য প্রার্থীকে কুপিয়ে হত্যা,আটক ৭

মোঃসামছু উদ্দিন লিটন, বিশেষ প্রতিনিধি

নোয়াখালী জেলার দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার সোনাদিয়া ইউনিয়নের চরচেঙ্গা বাজারে ইউপি সদস্য প্রার্থী মো. জোবায়ের হোসেনকে (৪৫), কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় ৭জনকে আটক করেছে পুলিশ।
শুক্রবার ৭ মে বিকেল ৪টা থেকে রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে পুলিশ।
হাতিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো.আবুল খায়ের শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টায় এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।তিনি জানান, হাতিয়া থেকে পালিয়ে যাওয়ার সময় ভোলার মনপুরা থেকে স্থানীয় কোস্টগার্ড ও পুলিশ সোনাদিয়া ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের ওমর ফারুক (৪৫), তার আপন ছোট ভাই রাসেদ (৩২) ও খোকনসহ ৩ জনকে আটক করে হাতিয়া থানায় সোপর্দ করে। এছাড়াও বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে আরো ৪ জনকে আটক করে হাতিয়া থানার পুলিশ।
ওসি আবুল খায়ের বলেন, আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখে আটককৃতদের বিরুদ্ধে আইনগত প্রদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

সংবাদ শেয়ার করুন

মহসিন মুন্সী, ব্যুরো চীফ, ফরিদপুর

আন্তর্জাতিক “বিশ্ব শান্তি সূচক-এ” সাত ধাপ উন্নতি বাংলাদেশের গত বছরের তুলনায় চলতি ব‌‌ছরে বৈশ্বিক শান্তি সূচকে ‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌(জিপিআই) বাং‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌লাদেশে‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌র‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌ সাত ধাপ উন্নতি হ‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌য়েছে। অস্ট্রেলিয়ার সিডনিভিত্তিক আন্তর্জাতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইনস্টিটিউট ফর ইকোনমিকস অ্যান্ড পিসের (আইইপি) তৈরি বিশ্ব শান্তির সূচকে গত বছর ৯৭তম অবস্থানে থাকলেও চলতি বছরে বাংলাদেশ ৯১তম স্থানে উঠে এসেছে। বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ার এই গবেষণা প্রতিষ্ঠান বৈশ্বিক শান্তি সূচক-২০২১ প্রকাশ করেছে। সূচকে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শান্তিতে বাংলাদেশের অবস্থান তৃতীয়। প্রত্যেক বছর বিশ্বের স্বাধীন ১৬৩টি দেশ ও ভূখণ্ডের নাগরিকদের শান্তিপূর্ণ জীবন-যাপনের নিরাপত্তা, সুরক্ষা, অর্থনৈতিক পরিস্থিতি এবং শান্তিপূর্ণ সমাজ গঠনে নেয়া পদক্ষেপের ওপর ভিত্তি করে এই তালিকা তৈরি করে আইইপি। চলতি বছর সহিংসতার অনুপস্থিতি অথবা সহিংসতার ভয়কে ধরে তিনটি মানদণ্ড— সুরক্ষা এবং নিরাপত্তা, চলমান সংঘাত এবং সামরিকায়নের ওপর ভিত্তি করে এই সূচক তৈরি করেছে আইইপি। শান্তির এই সূচকে গত বছরের তুলনায় একবারে সাত লাফ দেওয়ায় শ্রীলঙ্কাকে পেছনে ফেলেছে বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কায় শান্তিপূর্ণ পরিস্থিতির ব্যাপক অবনতি ঘটায় এর প্রভাব পড়েছে সূচকেও। গত বছরের তুলনায় ১৯ ধাপ অবনতি ঘটেছে দেশটির। এবারের সূচকে তাদের বৈশ্বিক অবস্থান ৯৫তম। তবে দক্ষিণ এশিয়ায় চতুর্থ স্থানে রয়েছে শ্রীলঙ্কা। অন্যদিকে, গত বছরের তুলনায় দুই ধাপ উন্নতি ঘটেছে ভারতের। এ বছর বৈশ্বিক শান্তি সূচকে দেশটির অবস্থান ১৩৫তম এবং দক্ষিণ এশিয়ায় পঞ্চম। দক্ষিণ এশিয়ায় শান্তিপূর্ণ পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে পাকিস্তানে। গত বছরের তুলনায় দুই ধাপ অবনতি ঘটেছে দেশটির। এর ফলে ১৫০তম অবস্থানে নেমেছে পাকিস্তান। দক্ষিণ এশিয়ায় পাকিস্তানের অবস্থান ষষ্ঠ। টানা চতুর্থবারের মতো বিশ্বের শান্তিপূর্ণ দেশের তালিকায় একেবারে তলানিতে রয়েছে যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তান (১৬৩তম)। দক্ষিণ এশিয়ায় শান্তিপূর্ণ দেশের তালিকায় সবার ওপরে আছে ভুটান। এরপরই আছে নেপাল। তবে দেশ দুটির বৈশ্বিক সূচকে অবস্থান যথাক্রমে ২২তম এবং ৮৫তম। শান্তিতে এশিয়ায় শীর্ষে রয়েছে সিঙ্গাপুর। ইনস্টিটিউট ফর ইকোনমিকস অ্যান্ড পিসের এ সূচকে বলা হয়েছে, এই অঞ্চলে বাংলাদেশ এবং ভারতে সহিংসতার ভয়ের হার নিম্ন রয়েছে। তারপরও বাংলাদেশের ২৫ শতাংশ এবং ভারতের ২৩ শতাংশ মানুষ সহিংস অপরাধের ব্যাপারে খুবই উদ্বিগ্ন। এছাড়া এই অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে সহিংসতার সর্বাধিক ভয় রয়েছে আফগানিস্তানে। দেশটির ৫৩ শতাংশ মানুষ সহিংসতার ব্যাপারে অত্যন্ত উদ্বিগ্ন। সিডনিভিত্তিক আন্তর্জাতিক এই গবেষণা প্রতিষ্ঠান বলছে, গত বছর বৈশ্বিক শান্তি সূচকে বাংলাদেশের স্কোর ২ দশমিক ১০২ থাকলেও চলতি বছরে তা ২ দশমিক ০৬৮। একই সঙ্গে গত বছরের তুলনায় চলতি বছরে ১ দশমিক ৬২ শতাংশ বেশি শান্তিপূর্ণ রয়েছে বাংলাদেশ। ২০২১ সালের এই সূচকে দেখা গেছে, বৈশ্বিক শান্তি গড়ে ০ দশমিক ০৭ শতাংশ অবনতি ঘটেছে। স্বল্প পরিমাণে হলেও গত ১৩ বছরের মধ্যে ৯ম বারের মতো বৈশ্বিক শান্তির অবনতি ঘটেছে বলে আইইপির প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। বৈশ্বিক শান্তির এই সূচকে মধ্যপ্রাচ্য এবং উত্তর আফ্রিকা অঞ্চল সবচেয়ে কম শান্তিপূর্ণ অঞ্চল রয়েছে। বিশ্বের সবচেয়ে কম শান্তিপূর্ণ প্রতি পাঁচটি দেশের মধ্যে অন্তত তিনটির অবস্থান এই দুই অঞ্চলে। বরাবরের মতো বিশ্বের শান্তিপূর্ণ অঞ্চলের খেতাব চলে গেছে ইউরোপে। বিশ্বের সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ প্রত্যেক ১০টি দেশের অন্তত আটটির অবস্থান ওই অঞ্চলে। ইনস্টিটিউট ফর ইকোনমিকস অ্যান্ড পিসের সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ শীর্ষ অর্ধেক দেশের তালিকায় ইউরোপের বাইরের কোনো দেশই ঠাঁই পায়নি। আইইপির এই সূচক প্রথমবার প্রকাশের সময় থেকে বরাবরের মতো বিশ্বের সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ দেশের তালিকায় শীর্ষে আছে আইসল্যান্ড (১ম)। এরপরই আছে নিউজিল্যান্ড (২য়), ডেনমার্ক (৩য়), পর্তুগাল (৪র্থ) ও স্লোভেনিয়া (৫ম)।

আন্তর্জাতিক ‘বিশ্ব শান্তি সূচক’ এ সাত ধাপ উন্নতি করেছে বাংলাদেশ


মোঃ নিজাম উদ্দিন, স্টাফ রিপোর্টার সিলেট থেকে:
সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার পূর্ব জাফলং ইউনিয়নের শান্তি নগর,সুনাটিলা,মোহাম্মদ পুর রহমতপুর কানাইজুরী ,তামাবিল,এলাকায় সংরক্ষিত বনান্চল রক্ষার বদলে রাতের আধারে বনের গাছে কেটে পাথর রাখার ডাম্পিং ইয়ার্ড ও বন ভুমি উজার করে টিলা কেটে পাথর উত্তোলণে সহয়তা করছে এমন অভিযোগ রয়েছে সারী রেন্জের জাফলং বিট কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম’র বিরুদ্ধে। স্থানীয়রা জানান,বিট কর্মকর্তার যোগসাজসে দীর্ঘদিন থেকে এমন কর্মকান্ড চল আসছে, সংরক্ষিত বন এলাকায় কোন ধরনের স্থাপনা নির্মাণের নিয়ম না থাকলেও জাফলংয়ে বিট কর্মকর্তার বানানো নিয়মেই চলে। সংরক্ষিত বন এলাকায় প্রতিটি স্থাপনা / বাড়ী থেকে নিয়মিত মাসোহারা আদায়ের অভিযোগও রয়েছে বিট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। কেউ প্রতিবাদ কিংবা মাসোহারা না দিলে তাকে বন আইনে মিথ্যা মামলার আসামী করা হয়। লাঠিয়াল বাহিনী দিয়ে হামলা করে পরের দিন হয়তো হামলার শিকার অসহায় পরিবার গাছ কাটার কিংবা সন্তাসী মামলায় চৌদ্দ শিকের ভিতর থাকতে হয়। বিট কর্মকর্তার ভয়ে কেউ মুখ খোলতে সাহষ পায় না। বন বিভাগের দায়েরকৃত ২৬/৩০টি মামলার আসামী হয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে অনেকেই। অবৈধ ভাবে পাথর ডাম্পিং ও গাছ পাচার এবং টিলা কেটে পাথর উত্তোলণ করে অঢেল সম্পদের মালিক বনে গেছেন বিট কর্মকর্তা। সম্পতি সময়ে রাতের আধারে টিলা কেটে পাথর উত্তোলণ করে রহমতপুর নেসারিয়া শাহী জামে মসজিদের সামনের রাস্তা দিয়ে অসংখ্যক ট্রলি ভর্তি পাথর নিয়ে যাওয়ার শব্দে মসুল্লীদের নামাজে সমস্য হয়, বিষয়টি বিট কর্মকর্তাকে জানালে বিট কর্মকর্তা পর দিন মসজিদটি সরকারী জায়গা হতে সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেয়,মসজিদ না সরালে বুলডেজার দিয়ে ভেঙ্গে ফেলার হুমকিসহ এলাকার মামুষকে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সদস্যদের মামলা হামলার ভয় দেখানো হয়। অবশেষে নিরুপায় হয়ে রহমতপুর নেসারিয়া শাহী জামে মসজিদ রক্ষায় স্মারকলিপি দিয়েছে মসজিদ পরিচালনা কমিটি।

গত ৬ জুন রবিবার সকাল রহমতপুর নেসারিয়া শাহী জামে মসজিদ রক্ষায় গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, অফিসার ইনচার্জ গোয়াইনঘাট থানা ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান’র কাছে স্মারকলিপি দেন এলাকাবাসী ও মসজিদ পরিচালনা কমিটি।

এলাকাবাসী ও মসজিদ পরিচালনা কমিটির পক্ষে মোঃ তোতা মিয়া স্বাক্ষরিত স্মারকলিপিতে উল্লেখ করেন ১৯৮৮ সালের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় দেড় শতাধিক পরিবার রহমতপুর এলাকায় বসতবাড়ি স্থাপন করে প্রায় ৩৩ বছর থেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাস করে আসছে।

রহমত পুর গ্রামে বসবাসরত শতভাগই মুসলমান। এরই প্রেক্ষিতে নিজেদের ছেলেমেয়েদের ধর্মীয় শিক্ষা এমনকি নিজেদের ইবাদত বন্দেগী করার জন্য গ্রামবাসী মিলে ২০০৩ সনে রহমতপুর নেসারিয়া শাহী জামে মসজিদ গড়ে তুলে।

এতদিন যাবৎ রহমতপুর গ্রামবাসী উক্ত এলাকায় শান্তি শৃঙ্খলার মধ্যে বসবাস করে আসলেও সম্প্রতি সময়ে জাফলং বনবিট কর্মকর্তা রহমতপুর গ্রামের একমাত্র মসজিদটি ভাঙ্গার জন্য মসজিদ পরিচালনা কমিটিসহ এলাকাবাসীকে নানা হুমকি ধামকি ও মামলার ভয়-ভীতি দেখাচ্ছে।

রহমতপুর গ্রামের একমাত্র ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান রহমতপুর নেসারিয়া শাহী জামে মসজিদ রক্ষায় তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করেন এলাকাবাসী। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেওয়ার কথা বলছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার। জাফলংয়ের সংরক্ষিত বনান্চল থেকে অবৈধ ভাবে অঢেল সম্পদের মালিক বনে যাওয়া বিট কর্মকর্তা জহিরুল ইসলামের সম্পদ অর্জনে দুর্নীতি দমন কমিশন ও এনবিআর এর হস্তক্ষেপ কামনা করছেন জাফলংবাসী। জাফলংয়ের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ধরে রাখতে কার্যকারী পদক্ষেপ নিবেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

বনবিট অফিসার জহিরুল ইসলামের,মোটো ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করে সংযোগ পাওয়া যায়নি।

জাফলংয়ে বন রক্ষার বদলে বন উজার করে ডাম্পিং ইয়ার্ড ও পাথর উত্তোলণে সহয়তা করছে বিট কর্মকর্তা

এমডি ইলিয়াস সেনবাগ প্রতিনিধি

আপনি শত্রু হবেন কি কি করলে জেনে রাখুন:-

আপনি যখন দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে কিছু বলবেন।

আপনি যখন ঘুষখোরের বিরুদ্ধে কিছু বলবেন।

আপনি যখন মিথ্যাবাদীদের বিরুদ্ধে কিছু বলবেন।

আপনি যখন চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে বলবেন।

আপনি যখন সুদখোরদের বিরুদ্ধে কিছু বলবেন।

আপনি যখন সমচলোনা কারীর বিরুদ্ধে বলবেন।

আপনি যখন অন্যায় অনিয়মের বিরুদ্ধে বলবেন।

আপনি যখন সমাজে ঘটে যাওয়া অনেক খারাপ ঘটনা তুলে ধরবেন।

আপনার এই তুলে ধরা টা তাদের গায়ে লাগবে যারা এইসব কর্মের সাথে জড়িত আছেন।

তাতে কি হয়েছে সত্য বলেই যাবো তাদের মত কিছু লোক শত্রু হলেও তাদের চেয়ে বেশি লোকের কাছে আমি প্রিয় হবো কারণ,,,

আমি সত্যের পক্ষে তাই সত্য বলে যাবো।

সমাজের অসঙ্গতি কাজ গুলো তুলে ধরে নিশ্চিত হতে পারেন আপনার শত্রুর সংখ্যা।

করোনার ভাইরাসের জন্য প্রবাসীদের সৌদি আরবে যাওয়ার পর সাত দিন নিজ খরচে হোটেলে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। সৌদি আরব এমন ঘোষণার দেয়ার পর বৃহস্পতিবার (২০ মে) থেকে ২৪ মে পর্যন্ত দেশটির সঙ্গে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।

সৌদি আরবের পাবলিক প্রসিকিউশনের নতুন নিয়ম অনুযায়ী, কেউ যদি করোনাভাইরাস ছড়ায় তাকে পাঁচ বছরের জেল এবং সর্বোচ্চ ৫ লাখ সৌদি রিয়াল জরিমানা করা হবে। যদি সেই ব্যক্তি প্রবাসী হয় তবে তাকে শাস্তি দেওয়ার পর সৌদি আরব থেকে বিতাড়িত করা হবে। আর ওই ব্যক্তি কোনও দিন সৌদি আরবে আসতে পারবে না।

এই সব হিসেব নিকেশে বিপাকে পড়েছেন সেখানকার প্রবাসী বাংলাদেশিরা। বাধ্যতামূলক হোটেল কোয়ারেন্টাইনের নিয়ম শিথিল করে ঘরে কোয়ারেন্টাইনের সুযোগ করে দেয়ার দাবি করেছেন তারা।

হোটেল বুকিং আর ইনস্যুরেন্স যদি না থাকে সৌদিগামী ফ্লাইটের বোর্ডিং পাস পাওয়া যাবে না কিছুতেই,। গত ১০ মে সৌদি সরকারের এ বিধিনিষেধ সৌদি আরবের জেনারেল অথরিটি অব সিভিল অ্যাভিয়েশন বিভিন্ন এয়ারলাইন্সকে এ তথ্য জানিয়েছে। বলা হয়েছে, যারা করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নেননি, তারা সৌদি আরবে প্রবেশ করলে সাত দিন হোটেলে বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। আর হোটেলের ব্যয়ও বহন করতে হবে যাত্রীকেই।

এমন পরিস্থিতিতে আগামী ২০ মে হতে ২৪ মে পর্যন্ত বিমানের সৌদিগামী সকল ফ্লাইট স্থগিত করা হয়েছে। এতে একদিকে যেমন বিপাকে পড়েছেন এ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সৌদিতে আসতে চাওয়া প্রবাসীরা অন্যদিকে সেখানে অবস্থা করা বাংলাদেশিরাও ফিরতে পারছেন না দেশে। এ অবস্থায় কোয়ারেন্টাইনের বিধিনিষেধ শিথিল করার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

যাত্রীদের বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের জন্য হোটেল বুকিং এয়ারলাইন্সের মাধ্যমে করার নির্দেশনাও দিয়েছে জেনারেল অথরিটি অব সিভিল অ্যাভিয়েশন।

যারা ভ্যাকসিন নিয়েছেন তাদের ভ্যাকসিন নেওয়ার প্রমাণপত্র সঙ্গে রাখতে হবে। তবে ফাইজার-বায়োএনটেকের ২ ডোজ, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ২ ডোজ, মডার্না ২ ডোজ এবং জনসন অ্যান্ড জনসনের টিকার ১ ডোজ যারা নিয়েছেন তারা হোটেলে বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকার বদলে বাসায় কোয়ারেন্টিনে থাকার সুবিধা পাবেন।

প্রবাসীদের জন্য কঠোর নিয়ম করেছে সৌদি, সমস্যায় বাংলাদেশিরা

themesbazartvsite-01713478536