বাড়ির নিজ গৃহকর্মীর হাতে খুন হলেন কেঁওচিয়ার সাবেক চেয়ারম্যান

বাড়ির নিজ গৃহকর্মীর হাতে খুন হলেন কেঁওচিয়ার সাবেক চেয়ারম্যান

রিদুয়ানুল হক, স্টাফ রিপোর্টারঃ গত ১ লা মার্চ সোমবার ভোর রাতে নিজ বাড়ির গৃহকর্মী জমির উদ্দিনের হাতে খুন হলেন সাতকানিয়া উপজেলা কেঁওচিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগের প্রবীণ নেতা আবদুল হক মিয়া। ১ লা মার্চ সকালে বাসার গৃহকর্মী বুলু বাসায় কাজ করতে আসলে, সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হক (৮৫) রক্তাক্ত মৃত অবস্থায় রুমে পড়ে থাকতে দেখে এবং সাথে কাজের ছেলে জমির (২৫)কে হাত পা বাধা অবস্থায় পাওয়া যায়। এই খবর ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয়রা এসে লাশ উদ্ধার করেন এবং কাজের ছেলে জমির কে স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।
প্রথমে এ-ই গৃহকর্মী জমিরের ভাষ্যমতে কালো মুখোশ পরা ৭-৮ জন দুর্বৃত্তরা কুপিয়ে হত্যা করে এবং কাজের ছেলে জমিরকে মারধর করে হাত পা বাধা অবস্থায় পেলে যায়, এবং বাড়ির স্বর্ণ অলংকার সহ বিপুল পরিমানের টাকা নিয়ে যায়। উল্লেখ্য বাসায় একজন কর্মচারী ছাড়া স্বজনরা কেউ বাসায় ছিলনা। সাতকানিয়া থানার পুলিশ সুপার জাকারিয়া মুহাম্মদ জিকু ও অফিসার ইনর্চাজ আনোয়ার হোসেন প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বাড়ির গৃহকর্মী ও কাজের মেয়েকে থানায় নিয়ে যায়। গৃহকর্মী জমির উদ্দিন পুলিশের কাছে খুনের সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। পুলিশ পরে তার ভাষ্যমতে ২ লা মার্চ মঙ্গলবার রাত ১১ টায় খুনের আলামত উদ্ধার করার জন্য চেয়ারম্যানের বাড়ির পার্শ্বের পুকুরের পানি সেচা এবং পুকুরে ৩টি মোবাইল, ১টি চাকু ও ১টি খন্তি সন্ধান মিলে। অভিযান চলাকালীন উপস্থিত ছিলেন সাতকানিয়া থানার সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকারিয়া জিকু ও থানায় অফিসার ইনচার্জ জনাব আনোয়ার হোসেন, সাব-ইন্সপেক্টর হাবিবুর রহমান, সাইফুল ইসলাম প্রমূখ। এ-ই বিষয় নিয়ে ভিকটিমের ছেলে মোঃ নেজাম উদ্দিন (৫৩) পিতা-মৃত আব্দুল হক মিয়া সাং-জনার কেওচিয়া, চেয়ারম্যান পাড়া, উকিল বাড়ী, থানা-সাতকানিয়া, জেলা-চট্টগ্রাম ও তাহার আপন ভাই ১। মইন উদ্দিন(৪৯), ২। মহিউদ্দিন মোঃ কচির(৪৪) সহ থানায় হাজির হইয়া অজ্ঞাতনামা বিবাদীদের বিরুদ্ধে এই মর্মে এজাহার দায়ের করিলে সাতকানিয়া থানার মামলা রুজু করা হয়। ঘটনায় জড়িত সন্দিদ্ধ আসামী জমির উদ্দিন (২৮) পিতা-হাবিবুর রহমান, মাতা-মনোয়ারা বেগম, সাং-জলদি খলিশা পাড়া, ২নং পৌর ওয়ার্ড, থানা-বাঁশখালী, জেলা-চট্টগ্রামকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। একপর্যায়ে ভিকটিম হত্যার কথা স্বীকার করে এবং তাহার দেখানো ও সনাক্তমতেভিকটিমকে হত্যায় ব্যবহৃত রক্তমাখা রড (কোরাবারী), ঘটনা সংশ্লিষ্ট ছুরি, ভিকটিম ও আসামীর মোট ০৩টি মোবাইল ফোন পুকুরের পানি সেচ করিয়া উদ্ধার পূর্বক জব্দ করা হয়। ধৃত আসামী জমির উদ্দিন (২৮) বিজ্ঞ আদালতে সোর্পদ করা হবে। মামলাটি তদন্তাধীন।

সংবাদ শেয়ার করুন

themesbazartvsite-01713478536