অপরূপ সাজে সেজেছে কক্সবাজার সরকারি কলেজ আঙ্গিনা।Darpon TV

অপরূপ সাজে সেজেছে কক্সবাজার সরকারি কলেজ আঙ্গিনা।Darpon TV

দক্ষিণ চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কক্সবাজার সরকারি কলেজ। অনন্য সৌন্দর্য মন্ডিত এ প্রতিষ্ঠানের ভৌত অবকাঠামো উন্নয়নের অনন্য অবদানের কারিগর এ কলেজেরই বর্তমান অধ্যক্ষ প্রফেসর এ.কে.এম ফজলুল করিম চৌধুরী। ২০১৩ সালে অধ্যক্ষ হিসেবে তিনি যোগদানের পর থেকেই কলেজ ক্যাম্পাসের সৌন্দর্য বর্ধনসহ পঠন ও পাঠন তথা শিক্ষা বান্ধব পরিবেশ সৃষ্টিতে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। বর্তমান কলেজ ক্যাম্পাস দেখে মুগ্ধ হয় আগত সকলেই। তাঁরই প্রচেষ্টায় কলেজে ভবনসমূহের আশপাশে নানা প্রজাতের ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা লাগানো থেকে শুরু করে কলেজের অভ্যন্তরীণ রাস্তাঘাট মেরামত, খেলার মাঠ সংস্কার, ভবনের সম্প্রসারণ, শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে ক্লাস রুম সংস্কার, সীমানা প্রাচীর নির্মাণ, নিরাপত্তা বিধানে সিসি ক্যামেরা স্থাপন, নিরাপদ সুপেয় পানির জলাধার স্থাপন, কলেজ ক্যাম্পাসকে ওয়াইফাই জোনে পরিবর্তন, শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল হাজিরা, ফলাফলসমূহ অনলাইনে প্রকাশসহ বাহ্যিক ও অভ্যন্তরীণ বহুমাত্রিক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে।
এরই ধারাবাহিকতায় অধ্যক্ষ প্রফেসর এ.কে.এম ফজলুল করিম চৌধুরীর নিবিড় পরিচর্যায় ছাত্রীনিবাসের আঙ্গিনা, কলেজের প্রশাসনিক ভবনের সম্মুখস্থ বাগান ও তৎসংলগ্ন নির্মিত দু’টি বিরল প্রজাতির উদ্ভিদ সংরক্ষণাগারে বাহারি ফুলে কানায় কানায় ভরে উঠেছে। গাদা, সিলভিয়া, ডায়ান্তাজ, কচমচ, জিনিয়াসহ নানা প্রজাতির ফুল রয়েছে এখানে। দৃষ্টিনন্দন এ সকল ফুল দেখে যে কেউই ফুলগুলোর সাথে অন্তত একটি ছবি উঠাতে ভুল করেন না।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর এ.কে.এম ফজলুল করিম জানান, ফুল পবিত্রতা ও শুভ্রতার প্রতীক। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আঙ্গিনা এরূপ মনোমুগ্ধকর নানা প্রজাতির ফুলে ফুলে ভরে তুললে শিক্ষার্থীরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানমুখী হবে। বর্তমানে শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাওয়ার প্রতি বিমুখীতা দেখা যায়। কিন্তু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সহপাঠ্যক্রমের পাশাপাশি সুন্দর পরিবেশ তৈরি করতে পারলে শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয় তথা কলেজমুখী হবে এবং এটি গুণগত শিক্ষা নিশ্চিতকরণে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

সংবাদ শেয়ার করুন

ইব্রাহিম সুজন, নীলফামারী প্রতিনিধ

নীলফামারীর সৈয়দপুরে জমিজমা সংক্রন্ত বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের সাজানো মিথ্যা মামলায় ফেলে এক নিরীহ পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে-নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলা কয়াগোলাহাট ঘোনপাড়া এলাকায়৷ অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বিগত ৭৯ বছর পূর্বে বসতি স্থাপন করে স্থানীয়রা রাস্তার উপর দিয়ে চলাচল করে আসছি৷ সম্প্রতি পারিবারিক কলহের জেরে চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে প্রতিপক্ষ৷ পরবর্তীতে ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে পুলিশ এসে রাস্তা খুলে দিলেও পুলিশ চলে যাবার পরে রাস্তাটি পুনরায় বন্ধ করে দেয় প্রতিপক্ষ৷ পরবর্তী স্থানীয়দের সহোযোগিতায় বাড়ির বিকল্প রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করলেও গত ২৬র্মাচ এ বিকল্প চলাচলের রাস্তাটিও বন্ধ করে দেয়া হয় । এতে বাধা দিলে সিরাজুল ইসলাম ও তার ভাই আজিজুল হক ও শফিকুল ইসলামের পরিবার এ-র উপর আতর্কিত হামলা করে বাড়ী ঘরের বেড়া, চেয়ার, টেবিল ভাংচুর করে ধারালো অস্ত্রসহ(হাচুয়া,বটি,দা) লোহার মোটা পাইপ দিয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট করে প্রতিপক্ষ সিরাজুলরা। আহতদের অবস্থা গুরুতর হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুরে নেয়া হয় (ওসিসি বিভাগের রিপোর্টের ভিত্তিতে সিরাজুল ও শফিকুলদের আসামী করে সৈয়দপুর থানায় মামলা করে ভুক্তভোগী পরিবারটি৷ এদিকে, মামলাটি থানায় দেয়ার পর থেকেই ভুক্তভোগী পরিবারটির উপর বিভিন্ন ধরনের হুমকী ধামকি বিদ্যমান রেখেছে প্রতিপক্ষ৷ ভুক্তভোগী পরিবারের আতিয়ার রহমান খোশো বলেন, আমি রংপুর বিভাগের রংপুর বীর উত্তম শহীদ সামাদ স্কুল এন্ড কলেজের বিজ্ঞান বিষয়ক সহকারী শিক্ষক । ঘটনার দিন আমি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত ছিলাম, এই মর্মে প্রতিষ্ঠান প্রিন্সিপাল মহোদয় প্রত্যায়ন পত্র প্রদান করেন। শফিকুলেরা অপরাধ সংঘটিত করে আগেই মামলা দায়ের করেন৷ আমি উপস্থিতি না থাকলেও আমাকে আসামির শ্রেনীভুক্ত করা হয়েছে৷ এমনকি, সৈয়দপুর পুলিশ ফাঁড়িতে আমার কল রেকর্ড আছে এবং ঐ কল রেকর্ড ট্রাকিং করে দেখা গেছে আমি ঐদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ২৬ শেষ মার্চের জাতীয় অনুষ্ঠানে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনে যুক্ত ছিলাম, শুধু মাত্র আমাকে হয়রানি করার জন্য এবং আমার সন্মান হানি করার জন্য হয়রানি মূলক মিথ্যা সাজানো মামলা করা হয়েছে৷ এ অভিযোগ প্রসঙ্গে শিক্ষকের বিরুদ্ধে করা মামলার বাদী শফিকুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, আতিয়ার রহমান খোশো তাদের সম্পর্কে আত্মীয় আমাদের সাথে জগড়া লাগলে তিনি তাদের পরামর্শ ও শেল্টার দেন। তাই ওনাকে আসামি করা হয়েছে। আমাদের জমিজমা নিয়ে বিরোধ আছে। তারাও আমাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে তাই আমরাও তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছি৷ তবে, মামলার সূষ্ঠ তদন্ত দাবি করেন সহকারী শিক্ষক আতিয়ার রহমানসহ অন্যান্য ভুক্তভোগীর।

নীলফামারীতে মিথ্যা মামলায় ফেলে নিরীহ পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ

ন‌ওগাঁর আত্রাইয়ে রবীন্দ্র কাচারি বাড়ি পতিসরে সাংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় এবং জেলা প্রশাসনের আয়োজনে ১৬১তম রবীন্দ্র জন্মোৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় “মানবতার সংকট ও রবীন্দ্রনাথ”। আজ রবিবার (৮ মে) সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসক জনাব মোঃ খালিদ মেহেদী হাসান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়।
প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বাংলাদেশ সরকারের খাদ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব প্রাপ্ত মাননীয় মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, এমপি।

বিশেষ অতিথি ছিলেন, জনাব মোঃ শহীদুজ্জামান সরকার এমপি ( ন‌ওগাঁ-২), জনাব মোঃ ইমাজ উদ্দিন প্রামাণিক এমপি ( ন‌ওগাঁ-৪), জনাব মোঃ ছলিম উদ্দিন তরফদার এমপি ( ন‌ওগাঁ-৩), জনাব মোঃ নিজাম উদ্দিন জলিল (জন) এমপি ( ন‌ওগাঁ-৫), জনাব মোঃ আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেন হেলাল এমপি ( ন‌ওগাঁ-৬), জনাব মনিরুল আলম, অতিরিক্ত সচিব সাংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রণালয়, জনাব আব্দুল মান্নান মিয়া, বিপিএম পুলিশ সুপার ন‌ওগাঁ জেলা, জনাব মোঃ আব্দুল মালেক, সভাপতি ন‌ওগাঁ জেলা আওয়ামীলীগ, এ্যাডভোকেট একেএম ফজলে রাব্বী বকু, প্রশাসক জেলাপরিষদ, ন‌ওগাঁ।

স্বাগতবক্তব্য দেন, আত্রাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ইকতেখারুল ইসলাম।

আলোচকবৃন্দ, অধ্যক্ষ (অব:) রাজশাহী কলেজ, রবীন্দ্র বিশেষজ্ঞ, প্রফেসর ড. মোঃ আশরাফুল ইসলাম , সাবেক সভাপতি বাংলা বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, প্রফেসর ড. পি এম সফিকুল ইসলাম ,
পরিচালক বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘর, রাজশাহী, প্রফেসর ড. আলী রেজা আব্দুল মজিদ , সহযোগী অধ্যাপক বাংলা বিভাগ, ন‌ওগাঁ সরকারি কলেজ,
ড. মোহাম্মদ শামসুল আলম।

আরও উপস্থিত ছিলেন, আত্রাই উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব আলহাজ্ব এবাদুর রহমান প্রামানিক, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ( পুরুষ) হাফিজুর রহমান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ( মহিলা) মমতাজ বেগম, আত্রাই থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের মুক্তিযোদ্ধাবৃন্দ, উপজেলা প্রশাসনের সকল কর্মকর্তা, ন‌ওগাঁ থেকে আগত ও আত্রাইয়ের সকল সাংবাদিকবৃন্দ, আগত দর্শনার্থীসহ এলাকাবাসী।

সামসুজ্জামান সেন্টু
আত্রাই উপজেলা প্রতিনিধি
তারিখঃ- ০৮/০৫/২০২২ ইং

ন‌ওগাঁর আত্রাইয়ে ১৬১ তম রবীন্দ্র জন্মোৎসব পালিত

themesbazartvsite-01713478536