বাংলা লোকসংগীত এর কালজয়ী পুরুষ আয়নাল বয়াতী

বাংলা লোকসংগীত এর কালজয়ী পুরুষ আয়নাল বয়াতী

মহসিন মুন্সী, বিশেষ প্রতিনিধি, ফরিদপুর। ৩ ডিসেম্বর ২০২০।

আয়নাল মিয়া বয়াতী
জন্ম সালঃ ১৯১৮ সাল
জন্মস্থানঃ বোয়ালমারী উপজেলার প্রেমতারা গ্রামে
মৃত্যুঃ ২০১৯ সালের ৩ ডিসেম্বর

সংক্ষিপ্ত বিবরণঃ
বাংলাদেশের লোকসংগীতের কিংবদন্তী শিল্পী, বাউল সম্রাট, সাধক আয়নাল মিয়া বয়াতী বোয়ালমারী উপজেলার প্রেমতারা গ্রামে ১৯১৮ সালে জন্মগ্রহন করেন। তার পিতার নাম গোলাপ মিয়া। তার বয়স যখন ছয় বছর তখন গ্রামের সাতৈর মাদ্রাসায় তাকে ভর্তি করে দেওয়া হয়। ছোটবেলা থেকেই গানের প্রতি ছিল তার তীব্র ঝোঁক। গ্রামের সংগীত সাধক ইয়াছিন ফকিরের কাছে গানের তালিম গ্রহণ করতেন। মাদ্রাসা থেকে পাশ করার পর তিনি পুলিশ বিভাগে চাকরী নেন। এরপর তিনি বিবাহ করে শ্বশুরবাড়ী ফরিদপুর সদরের আলিয়াবাদ ইউনিয়নের সাদীপুর গ্রামে বসবাস শুরু করেন। পুলিশে চাকুরি করার সময় তিনি ব্যারাকের মধ্যেই লোকগিতী ও বিচারগান গাইতেন। বিচারগান পরিবেশনার জন্য তিনি বিভিন্ন জায়গায় দাওয়াত পেতে শুরু করেন । এরপর সাধক আয়নাল মিয়া বয়াতী ১৯৪০ সালের দিকে চাকুরী ছেড়ে দিয়ে দেশ ব্যাপী বিচার গান গাইতে শুরু করেন। একটানা তিনি ৭৭ বছর বিচার গান গেয়েছেন। পেয়েছেন নানা সম্মাননা ও পুরস্কার। তিনি বাংলাদেশ বেতার ও বাংলাদেশ টেলিভিশনের নিয়মিত শিল্পী ছিলেন। এছাড়াও বাংলাদেশের প্রায় সকল বেসরকারী টেলিভিশনে তিনি সংগীত পরিবেশন করেছেন। দেশের বাহিরেও তিনি লোকগিতী পরিবেশন করেছেন। প্রায় ৩ শত অডিও ক্যাসেট ও বেশ কিছু গানের সিডি রয়েছে তার। সাধক আয়নাল মিয়া বয়াতী তারেক মাসুদ পরিচালিত মাটির ময়না ছবিতে গান করেছেন। তিনি বাংলাদেশের প্রতিথযশা লোক ও বাউলশিল্পী আব্দুল হালিম বয়াতী, রজ্জব আলী দেওয়ান, হাজেরা বিবি, মালেক দেওয়ান, জালাল সরকার, কাজল দেওয়ান, আলেয়া , আকলিমা, মমতাজসহ দেশের প্রায় সকল শিল্পীর সাথেই তিনি গান করেছেন। হাল আমলের শিল্পীরা তার সাথে গান করার সুযোগ খুজতেন। তার গবেষণামূলক কয়েকটি গ্রন্থ জাতীয় ভাবে প্রকাশিত হয়েছে। তিনি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে অসংখ্যবার পুরুস্কৃত হয়েছেন।

সংবাদ শেয়ার করুন

সাইফুল ইসলাম,কক্সবাজার প্রতিনিধি :

কক্সবাজারের মহেশখালীর কালামারছড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে অস্ত্রসহ দুজন সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব -১৫।

বুধবার (১৯ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ২ টার দিকে র‍্যাব -১৫ একটি টিম মহেশখালীর কালামারছড়ায় এঅভিযান পরিচালনা করে।

র‍্যাব -১৫ এর অতিঃ পুলিশ সুপার সিনিঃ সহকারী পরিচালক ( ল ‘ এন্ড মিডিয়া ) অধিনায়ক মোঃ আবু সালাম চৌধুরী জানান, মহেশখালীর কালামারছড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের রাস্তার উপর কয়েকজন সন্ত্রাসী অপরাধমূলক কর্মকান্ড করার জন্য অবস্থান করছে, এমন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযানিক দল অভিযানে গেলে র‍্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে পালানোর চেষ্টাকালে খায়রুল আলম ( ২৫ )ও ছৈয়দুল করিম ( ৩৩ )কে আটক করে।এসময় এই সিন্ডিকেটের ২/৩ জন সদস্য কৌশলে পালিয়ে যায়।

পরে আটককৃতদের কাছ থেকে ৪ রাউন্ড তাজা কার্তুজ,২ টি একনলা বন্দুক ও ২ টি ওয়ানশুটারগান উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরও জানান:আটককৃতরা দীর্ঘদিন ধরে সমাজে অস্হিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করতে সন্ত্রাস ও অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছিল।

গ্রেপ্তারকৃত ও পলাতক আসামীদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা রুজু করে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে মহেশখালী থানায় অভিযোগ দেয়া হয়েছে।

মহেশখালীতে অস্ত্রসহ দুই সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার।

themesbazartvsite-01713478536