গোয়াইনঘাটে ১৮টি অতিরিক্ত শ্রেনীকক্ষ ভবন নির্মাণ হচ্ছে, ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে।

গোয়াইনঘাটে ১৮টি অতিরিক্ত শ্রেনীকক্ষ ভবন নির্মাণ হচ্ছে, ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে।

স্টাফ রিপোর্টার সিলেট থেকে:
গোয়াইনঘাটে ১৮টি অতিরিক্ত শ্রেনীকক্ষ ভবন নির্মাণ হচ্ছে, ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে । শ্রেণীকক্ষ সংকট প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়নে এখনো বড় বাধা। এটা দূর করতে চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি (পিইডিপি-৪) শীর্ষক এ প্রকল্পটি ২০১৮ সালে হাতে নেয় সরকার। চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি (পিইডিপি-৪) শীর্ষক এ প্রকল্পের আওতায় পাঠদানের আধুনিক
ও উন্নত প্রযুক্তি চালুর লক্ষ্যে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলায় ১৮ টি অতিরিক্ত শ্রেণীকক্ষ ভবন নির্মাণ করছে সরকার।
এছাড়াও উক্ত প্রকল্পটির আওতায় গোয়াইনঘাটের ৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বাউয়ান্ডারী ওয়াল নির্মাণ করা হচ্ছে। উক্ত অতিরিক্ত শ্রেনী কক্ষ ভবন নির্মাণ ও বাউন্ডারি ওয়াল নির্মাণে প্রায় ২৫ কোটি টাকা ব্যয় হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি (পিইডিপি-৪) শীর্ষক এ প্রকল্পের আওতায় উক্ত বিদ্যালয় সমূহে পাঠদানের আধুনিক ও উন্নত প্রযুক্তি চালু করা হবে। বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হবে শিক্ষক নিয়োগ ও প্রশিক্ষণের ওপর। ২০১৮ সালের জুলাই থেকে প্রকল্পটির বাস্তবায়ন কার্যক্রম শুরু হয়েছে ২০২৩ সালের জুন মাসের মধ্যে গোয়াইনঘাট উপজেলায় গ্রহণকৃত ভবন গুলোর কার্যক্রম শেষ হবে। এটি বাস্তবায়ন করছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)। উক্ত প্রকল্পটিকে শিক্ষা খাতে স্বপ্নের প্রকল্প বলে অনেকই মনে করছেন। সরকারি তহবিল ও বৈদেশিক সহায়তা ছাড়াও বিশ্বব্যাংক, এডিবি, জাইকা, ইইউ, ডিএফআইডি, অস্ট্রেলিয়ান এইড, কানাডিয়ান সিডা, সুইডিশ সিডা, ইউনিসেফ ও ইউএসএইচ প্রকল্পটিতে অর্থায়ন করছে। শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ, শ্রেণীকক্ষ নির্মাণ, সব শিশুর শিক্ষা নিশ্চিতকরণ, আইসিটি শিক্ষার মানোন্নয়ন— সব মিলিয়ে প্রাথমিক শিক্ষার গুণগত মান নিশ্চিত করার লক্ষ্যে এ প্রকল্প নেয়া হয়েছে। বর্তমান সরকার এসডিজি অর্জনের ক্ষেত্রে অঙ্গীকারবদ্ধ। এ লক্ষ্য সামনে রেখেই চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচির এ পরিকল্পনা।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রাতিষ্ঠানিক সামর্থ্য বৃদ্ধি, জাতীয় শিক্ষানীতি প্রণয়ন, বিদ্যালয়ের পরিবেশ আকর্ষণীয় করা, বিভিন্ন অংশীজনের সঙ্গে সমন্বয়, স্যানিটেশন সুবিধা বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন উন্নয়নের উদ্যোগ নেয়া হয় এ ধাপে। চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি (পিইডিপি-৪) প্রকল্পের আওতায় সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলায় ফতেহপুর ইউনিয়নের রামনগর, বাণীগ্রাম,নয়াগাম ও ফতেহপুর ২য় খন্ড কমিউনিটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অতিরিক্ত শ্রেনী কক্ষ ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে। ডৌবাড়ী ইউনিয়নের কামাইদ,লাবু,রুস্তুমপুর ইউনিয়নের উপরগ্রাম। ফতেহপুর ইউনিয়নের গোসাইনপুর,গুলনী,ফতেহপুর ২য়খন্ড সরকারি প্রাথমিকবিদ্যালয়ে। পশ্চিম জাফলং ইউনিয়নের ছাতারগ্রাম,রুস্তুমপুর ইউনিয়নের বড়ঘোষা, তোয়াকুল ইউনিয়নের লক্ষীনগর, আলীরগাওঁ ইউনিয়নের খলারবন্দ, কুড়িহাই, ডৌবাড়ী ইউনিয়নের সাতকুড়ি কান্দি এবং পূর্ব জাফলং ইউনিয়নের সংগ্রামপুঞ্জি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অতিরিক্ত শ্রেনী কক্ষ ভবন নির্মাণ করা হবে। পাশাপাশি উক্ত প্রকল্পের গোয়াইনঘাট উপজেলার নন্দীরগাওঁ ইউনিয়নের মিত্রিমহল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, লেঙ্গুড়া ইউনিয়নের গুরুকচি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,পশ্চিম জাফলং ইউনিয়নের ছাতারগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,আলীরগাওঁ ইউনিয়নের পূর্নানগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ডৌবাড়ী ইউনিয়নের ডৌবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বাউন্ডারি ওয়াল নির্মাণ করা হচ্ছে।

এব্যাপারে গোয়াইনঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ ইব্রাহিম বলেন, প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়নে সরকার নানা কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছে। চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি (পিইডিপি-৪) প্রকল্পটি তার মধ্যে অন্যতম। গোয়াইনঘাট উপজেলা প্রোকৌশী রাসেন্দ্র চন্দ্র দেব বলেন, চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি (পিইডিপি-৪) প্রকল্পের আওতায় নির্মিত অতিরিক্ত শ্রেনী কক্ষ ভবন নির্মাণ কাজ যথাযথ ভাবে সম্পন্ন লক্ষে আমরা নিয়মিত ভাবে তদারকি করছি।

এব্যাপারে গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাজমুস সাকিব বলেন, সরকারের প্রতিটি উন্নয়ন প্রকল্প যথাযথ ভাবে বাস্তবায়নের জন্য সর্বদাই তদারকি করা হচ্ছে। বিশেষ করে চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি (পিইডিপি-৪) প্রক

সংবাদ শেয়ার করুন

themesbazartvsite-01713478536