“আগৈলঝাড়ায় কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে কর্নধর বৈষ্ণবের বিরুদ্ধে মামলা”

“আগৈলঝাড়ায় কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে কর্নধর বৈষ্ণবের বিরুদ্ধে মামলা”

বি এম মনির হোসেন, স্টাফ রিপোর্টারঃ-

বরিশালের আগৈলঝাড়ায় এক কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আদালতের অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার রাজিহার ইউনিয়নের রাজিহার গ্রামের এক কলেজ ছাত্রী(বরিশাল বি, এম,কলেজে ম্যানেজমেন্ট বিভাগে অনার্স ফাইনাল ইয়ারের ছাত্রী) ছাত্রী ও কর্নধর বৈষ্ণবের বাড়ী একই এলাকায় কাছাকাছি, কর্নধর বৈষ্ণব প্রায় এক বছর পূর্বে থেকে বিভিন্ন সময়ে পথে ঘাটে উত্যক্ত সহ প্রেম নিবেদন করে।কলেজ ছাত্রী প্রেম নিবেদনে রাজি না হওয়ায় বিয়ের প্রতিশ্রুতি দেয় এই ভাবে দীর্ঘদিন বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিলে একপর্যায়ে কর্নধর বৈষ্ণবের প্রস্তাবে রাজি হয় সেই সুযোগে কর্নধর বৈষ্ণব বিভিন্ন সময়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে যৌন মিলন করে। এভাবে কর্নধর বৈষ্ণব কলেজ ছাত্রীর সরলতার সুযোগে অবৈধ যৌন মিলন সম্পাদন করে, কর্নধর বৈষ্ণবকে বিয়ের কথা বলিলে সে নানা অজুহাতে আজকাল করিয়া সমায় ক্ষেপণ করিতে থাকিয়া কলেজ ছাত্রীর সাথে যৌন মিলন করে। প্রকাশ থাকে যে (২)সজল সরকার,(৩)সমিরন বৈষ্ণব,(৪)কানাইলাল বৈষ্ণব এরা পূর্ব থেকেই জানতেন এবং কর্নধর বৈষ্ণবকে সহায়তা করিত।
সর্বশেষ গত ১৩ আগষ্ট ২০২০ রোজ বৃহস্পতিবার রাত ১০ ঘটিকায় জোর পূর্বক বিয়ের প্রলোভন দিয়ে তার ঘরে পিছনে নিয়ে ধর্ষন করে উপজেলার বাকাল ইউনিয়নের বাগপাড়া গ্রামের কানাই লাল বৈষ্ণবের ছেলে কর্নধর বৈষ্ণব। এর পরে বিয়ের জন্য কর্নধর বৈষ্ণবকে চাপ প্রয়োগ করলে সে তালবাহানা শুরু করতে থাকেন। এঘটনা তার পরিবারকে জানালে তারা ওই কলেজ ছাত্রীকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। এঘটনায় ওই ধর্ষিতা বাদী হয়ে গত ২৩ আগষ্ট বরিশাল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। এস আই আব্বাস উদ্দিন জানান, আদালতের মামলার কাগজ পেয়েছি। মামলাটি তদন্ত করে প্রয়োজনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বাকাল ইউনিয়ন পরিষদের ২ নং ওয়াড মেম্বার রমেশচন্দ্র সাংবাদিকদের বলেন এবিষয় নিয়ে কয়েকবার সমাজতার চেস্টা করেছি। ছেলের বাবা কানাইলাল বৈষ্ণব বলেন আমি মেয়ের বাবার কাছে গিয়ে তার কলেজ ছাত্রীকে আমার ছেলে কর্নধর বৈষ্ণবের জন্য চাইলে মেয়ের বাবা বলেন আমার মেয়েকে তোমার ছেলের সঙ্গে বিবাহ দিবো না। এব্যাপারে মেয়ের বাবা মা বলেন কর্নধর বৈষ্ণবের বাবা আমাদের বাড়িতে আসেনি সে মিত্থা কথা বলেছে বরং আমাদের পক্ষো থেকে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে এবং আমার মেয়ে তাদের বাড়ী গেলে তাঁকে মেরে গুম করে ফেলবে।ছেলের ছোট বোন বলেন আমার ভাইয়ের সঙ্গে সম্পর্ক ছিলো এখন নাই আমরা বলেছি মেয়ে অনেক খারাব আমদের বাড়ীর কাছেই তাই এখন আর সম্পর্ক রাখবেনা।

সংবাদ শেয়ার করুন

মীর এম ইমরান ষ্টাফ রিপোর্টারঃ:

শিবচরের কাঠালবাড়ীতে ছোট্ট একটা ভুলে ইজিবাইক চাপায় প্রাণ গেল চার বছরের শিশু সায়েমের। শুক্রবার বেলা ১১টার সময় কাঠালবাড়ী ঘাট থেকে আসা একটি ইজিবাইকের চাপায় মৃত্যু হয় শিশুটির। পরিবারের লোকজন জানান, মায়ের হাত ধরে কাঠালবাড়ী সড়কের রাস্তার পাশ দিয়ে হাঁটছিল চার বছরের সায়েম মিয়া। কিছুক্ষণ পর মায়ের হাত ছাড়িয়ে কিছুটা এগিয়ে যেতেই ইজিবাইকের ধাক্কায় প্রাণ হারায় শিশুটি। সায়েম মিয়া কাঁঠালবাড়ী ইউনিয়নের আমিনউদ্দিন হাজীর কান্দি গ্রামের সালাম ফকিরের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মায়ের হাত ধরে সায়েম রাস্তার পাশ দিয়ে হাঁটছিল। কাঁঠালবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের কাছাকাছি এসে হঠাৎ করেই মায়ের হাত ছেড়ে সামনে এগিয়ে যায় সায়েম। এসময় কাঁঠালবাড়ী ঘাট থেকে ছেড়ে আসা ব্যাটারি চালিত একটি ইজিবাইক শিশুটিকে চাপা দিলে ঘটলাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

শিবচরের কাঠালবাড়ীতে অসাধারণতায় ইজিবাইকের চাপায় চার বছরের শিশুর মৃত্যু

themesbazartvsite-01713478536