শিবচরে বিএনপি পাঁচশত বন্যার্তদের পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন।

শিবচরে বিএনপি পাঁচশত বন্যার্তদের পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন।

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

মাদারীপুরের শিবচরে সাবেক শিবচর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মরহুম নাজমুল হুদা মিঠু চৌধুরীর বাড়িতে পাঁচ শতাধিক বন্যার্ত বানভাসি পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন।

এ খাদ্য সামগ্রী বিতরণের সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা,

ত্রাণ সাহায্য কার্যক্রমের আগে উপস্থিতি বক্তব্য রাখেন শিবচর বিএনপির নেতা মনির কাজী, শহিদুল ইসলাম শহীদ, বক্তব্যের শুরুতেই বলেন শিবচরের তিন থেকে চারটি গ্রুপ রয়েছে বিএনপি এই গ্রুপ কে ভেঙে একটি গ্রুপ করে শিবচর উপজেলা বিএনপিকে আরও শক্তিশালী করার আহ্বান জানান কেন্দ্রীয় নেতা কর্মীদের প্রতি। বক্তব্যে আরও বলেন সরকার ও শক্তিশালী করতে হলে বিএনপি সব গ্রুপ বাদ দিয়ে একটি শক্তিশালী বিএনপি গ্রুপ তৈরি করতে হবে এতে শিবচরের বিএনপির আরো শক্তিশালী হবে বলেও আশা রাখেন শিবচরের নেতারা।

অতিথির বক্তব্যে বি এন পির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক – সম্পাদক মাসুদুজ্জামান মাসুক বলেন এই দুর্যোগের সময় আমরা বন ভাসিয়ে করুণা কালীন ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে আমরা অতি শীগ্রই শিবচরের সকল গ্রুপিং ভেঙে একটি শক্তিশালী বিএনপির দলে পরিণত করার প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবো।

বক্তব্যে কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদকসেলিমুজ্জামান সেলিম বলেন বিএনপির প্রতি মানুষের ভালোবাসা এবং আস্থা তা অতি শীগ্রই আমরা পরিপূর্ণ অর্জন করবে তিনি আরো বলেন আমাদের নেত্রী এখনো আমাদেরকে জনগণের পাশে দাঁড়ানোর নির্দেশ দিয়েছে তিনি অনেক অসুস্থ তারপরও দেশ ও দেশের মানুষের কথা চিন্তা করে এবং বনবাসী মানুষের পাশে দাঁড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন আমরা তার নির্দেশক্রমে আজকে আপনাদের মাঝেই ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করতে পারছি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক শ্যামা ওবায়েদ তিনি বলেন প্রায় ১২ বছর যাবত বিএনপি ক্ষমতায় নেই ,রাজপথে নামতে গেলে পুলিশ দিয়ে হয়রানি ,খুন, গুম করে আমাদেরকে শেষ করে দিতে চায়,কিন্তু বিএনপি নেতাকর্মীরা এতে কোনো ভয় না পেয়ে এগিয়ে যাচ্ছে, এবং আমাদের বিজয় আসবে নিশ্চিত জেনেই এত দুশ্চিন্তায় পড়েছেন বর্তমান ক্ষমতাসীন দল,

তিনি বলেন শিবচর কি বেগম জিয়ার ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত করবে কিন্তু বিএনপির বিজয় আসবে।

ফরিদপুর ৪ আসনের (ভাঙ্গা) ক্যান্ডিডেট খন্দকার সেলিম ,উপস্থিত ছিলেন মাদারীপুরের বিএনপি নেতাকর্মীসহ আরো অনেকে,

ত্রাণ কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয় সাবেক সভাপতি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি মরহুম নাজমুল হুদা মিঠু চৌধুরীর বসতবাড়িতে,নেতৃত্ব দেন মরহুম নাজমুল হুদা মিঠু চৌধুরীর সহধর্মিনী, সদস্য মাদারীপুর জেলা আহ্বায়ক কমিটি বিএনপি- জনাবা নাদিরা মিঠু নেতৃত্বে এই ত্রাণ কার্যক্রম অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়,

প্রায় ৫০০ টি পরিবারের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন বিএনপির উপস্থিতি নেতাকর্মীরা বলেন বিএনপি ক্ষমতায় আসলে সাধারণ জনগণের পাশে এখন যেমন আছে তার চেয়েও অধিক হারে সাহায্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেবে।

সংবাদ শেয়ার করুন

ইব্রাহিম সুজন, নীলফামারী প্রতিনিধ

নীলফামারীর সৈয়দপুরে জমিজমা সংক্রন্ত বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের সাজানো মিথ্যা মামলায় ফেলে এক নিরীহ পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে-নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলা কয়াগোলাহাট ঘোনপাড়া এলাকায়৷ অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বিগত ৭৯ বছর পূর্বে বসতি স্থাপন করে স্থানীয়রা রাস্তার উপর দিয়ে চলাচল করে আসছি৷ সম্প্রতি পারিবারিক কলহের জেরে চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে প্রতিপক্ষ৷ পরবর্তীতে ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে পুলিশ এসে রাস্তা খুলে দিলেও পুলিশ চলে যাবার পরে রাস্তাটি পুনরায় বন্ধ করে দেয় প্রতিপক্ষ৷ পরবর্তী স্থানীয়দের সহোযোগিতায় বাড়ির বিকল্প রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করলেও গত ২৬র্মাচ এ বিকল্প চলাচলের রাস্তাটিও বন্ধ করে দেয়া হয় । এতে বাধা দিলে সিরাজুল ইসলাম ও তার ভাই আজিজুল হক ও শফিকুল ইসলামের পরিবার এ-র উপর আতর্কিত হামলা করে বাড়ী ঘরের বেড়া, চেয়ার, টেবিল ভাংচুর করে ধারালো অস্ত্রসহ(হাচুয়া,বটি,দা) লোহার মোটা পাইপ দিয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট করে প্রতিপক্ষ সিরাজুলরা। আহতদের অবস্থা গুরুতর হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুরে নেয়া হয় (ওসিসি বিভাগের রিপোর্টের ভিত্তিতে সিরাজুল ও শফিকুলদের আসামী করে সৈয়দপুর থানায় মামলা করে ভুক্তভোগী পরিবারটি৷ এদিকে, মামলাটি থানায় দেয়ার পর থেকেই ভুক্তভোগী পরিবারটির উপর বিভিন্ন ধরনের হুমকী ধামকি বিদ্যমান রেখেছে প্রতিপক্ষ৷ ভুক্তভোগী পরিবারের আতিয়ার রহমান খোশো বলেন, আমি রংপুর বিভাগের রংপুর বীর উত্তম শহীদ সামাদ স্কুল এন্ড কলেজের বিজ্ঞান বিষয়ক সহকারী শিক্ষক । ঘটনার দিন আমি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত ছিলাম, এই মর্মে প্রতিষ্ঠান প্রিন্সিপাল মহোদয় প্রত্যায়ন পত্র প্রদান করেন। শফিকুলেরা অপরাধ সংঘটিত করে আগেই মামলা দায়ের করেন৷ আমি উপস্থিতি না থাকলেও আমাকে আসামির শ্রেনীভুক্ত করা হয়েছে৷ এমনকি, সৈয়দপুর পুলিশ ফাঁড়িতে আমার কল রেকর্ড আছে এবং ঐ কল রেকর্ড ট্রাকিং করে দেখা গেছে আমি ঐদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ২৬ শেষ মার্চের জাতীয় অনুষ্ঠানে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনে যুক্ত ছিলাম, শুধু মাত্র আমাকে হয়রানি করার জন্য এবং আমার সন্মান হানি করার জন্য হয়রানি মূলক মিথ্যা সাজানো মামলা করা হয়েছে৷ এ অভিযোগ প্রসঙ্গে শিক্ষকের বিরুদ্ধে করা মামলার বাদী শফিকুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, আতিয়ার রহমান খোশো তাদের সম্পর্কে আত্মীয় আমাদের সাথে জগড়া লাগলে তিনি তাদের পরামর্শ ও শেল্টার দেন। তাই ওনাকে আসামি করা হয়েছে। আমাদের জমিজমা নিয়ে বিরোধ আছে। তারাও আমাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে তাই আমরাও তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছি৷ তবে, মামলার সূষ্ঠ তদন্ত দাবি করেন সহকারী শিক্ষক আতিয়ার রহমানসহ অন্যান্য ভুক্তভোগীর।

নীলফামারীতে মিথ্যা মামলায় ফেলে নিরীহ পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ

themesbazartvsite-01713478536