প্রশাসনকে উকিল নোর্টিশ পুঠিয়ায় দুই বছরে ১২১ টি পুকুর খনন

প্রশাসনকে উকিল নোর্টিশ পুঠিয়ায় দুই বছরে ১২১ টি পুকুর খনন

রাজশাহী প্রতিনিধিঃরাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলায় পুকুর খননের মহা উৎসব চলছে। গত দুই বছরে ১ শত ২১ টি পুকুর খনন সম্পন্ন করেছে। বর্তমানে কয়েকটি স্থানে পুকুর খনন চলমান রয়েছে। ইতি মধ্যে পুকুর খননকারীরা জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, রাজশাহীর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভুমি) কে উকিল নোর্টিশ প্রদান করেন। একালাবাসীর দ্বন্দ্বের জের ধরে স্কেকেভিটর (ভেকু) মেশিন পুড়ানো, পুকুর খননের বিপক্ষে মানববন্ধন এর ঘটনা ঘটেছে। শুধু তাই নয়, সাংবাদিকদের অবগত করণপত্র এবং হুমকি দিয়ে উপজেলা বিভিন্ন স্থানে দিন-রাত পুকুর খনন করে চলছে। প্রশাসন অজ্ঞাত কারণে বিভিন্ন সময়ে নিরব ভূমিকা পালন করছে। তাতে পুকুর খননকারী দালালদের সহযোগীতা করার অভিযোগ করেছে কয়েকজন ক্ষমতাশীন দলের নেতার বিরুদ্ধে। যার কারনে দেখার যেন কেউ নেই। এর কারণে রাস্তা ঘাটের বেহাল অবস্থা। পরিবেশ নষ্ট করছে ট্রাকটার ও ভাড়ি ট্রাক গাড়ী বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী।
উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার দপ্তর ও ইউনিয়ন ভূমি অফিস সূত্রে জানাগেছে, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে রাজশাহী জেলার পুঠিয়া উপজেলায় মোট ৭১ টি পুকুর খনন করা হয়েছে। এর মধ্যে পুঠিয়া ইউনিয়নে ৬ টি, বেলপুকুরিয়া ইউনিয়নে ৮টি, বানেশ্বর ইউনিয়নে ৪টি, ভালুকগাছী ইউনিয়নে ১৯ টি, শিলমাড়িয়া ইউনিয়নে ২৯, জিউপাড়া ইউনিয়নে ৫টি পুকুর খনন করেছে।
২০১৯-২০ অর্থ বছরে পুঠিয়া উপজেলায় মোট ৫০ টি পুকুর খনন করা হয়েছে। এরমধ্যে পুঠিয়া ইউনিয়নে ৫টি, বেলপুকুরিয়া ইউনিয়নে ৫টি, বানেশ্বর ইউনিয়নে ২টি, ভালুকগাছী ইউনিয়নে ২১ টি, শিলমাড়িয়া ইউনিয়নে ৭, জিউপাড়া ইউনিয়নে ১০টি পুকুর খনন করেছে।
এর মধ্যে মহামান্য হাইকোর্ট, সুপ্রিম কোর্টে অর্ডার রয়েছে। রাজশাহী জেলা প্রশাসক রাজস্ব এর অনুমতি প্রাপ্ত হয়ে ২ টি পুকুর খনন হয়েছে।
চলতি বছর ৩০ এপ্রিল পুঠিয়া উপজেলার জিউপাড়া ইউনিয়নের বিলমাড়িয়া গ্রামের শামসুল হকের ছেলে শামীম হোসেন এবং একই উপজেলার শিলমাড়িয়া ইউনিয়নের কাশিয়াপুকুর গ্রামের মোঃ দবির উদ্দিনের ছেলে মোঃ আব্দুল গফুর এই দুই জনে ব্যারিষ্টার মোঃ আবুবাক্কার সিদ্দিক রাজন এর মাধ্যমে জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, রাজশাহীর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুমন চৌধুরী ও সহকারী কমিশনার (ভুমি) কে উকিল নোর্টিশ প্রদান করেন। বর্তমানে শামীম হোসেন দাপটের সাথে বর্তমানেও পুকুর খনন করে চলেছে।
ইতিমধ্যে জিউপাড়া ইউনিয়নের উজালপুর এলাকাবাসীর সাথে দ্বন্দ্বের জের ধরে স্কেভিটর (ভেকু) মেশিন পুরানোর ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে একটি মামলা চলমান রয়েছে। তারপরও পুকুর খনন শেষ করেছে খননকারীরা।
পুঠিয়া প্রেসক্লাব, পুঠিয়া উপজেলা প্রেসক্লাব সহ সাংবাদিকদের অবহিত করণ পত্র প্রাদান করে। আর একজন সাংবাদিককে হুমকি দেওয়ায় দুইজন পুকুর খননকারী রিরুদ্ধে সাধারণ ডাইরী (জিডি) করেছেন।
ইতিমধ্যে ভালুকগাছী ইউনিয়নের গোটিয়া বিলে ফসলী জমিতে পুকুর খননের ঘটনায় এলাকাবাসী পুকুর খননকারী দুর্গাপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল কাদের মন্ডল এবং একই উপজেলার আঃ লতিফ এর বিরুদ্ধে এলাকাবাসী জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার ভূমি বরাবর লিখিত অভিযোগ জমা দেন। সেখানে ইতিমধ্যে ৪ বার ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করেছেন। তারপরও পুকুর খননকারীরা রহস্যজনক ভাবে দিন-রাত ভেকু মেশিন দিয়ে ফসলী জমির চারো ধার পুকুরের পাড়ি বাঁধা শেষ করেছে। এতে কোন সুফল না পাওয়ায় চলতি বছর মে মাসের ৪ তারিখে মানবন্ধন করেছে এলাকাবাসী।
ব্যারিষ্টার আবু বাক্কার সিদ্দিক (রাজন) জানান, মহামান্য আদালতের অনুমতি ক্রমে ১৭ জন পুকুর খনন করার কথা সেখানে ১০ টি পুকুর খনন করেছে আবেদনকারীরা। তবে আমি খবর পেয়েছি কিছু পুকুর খননকারীরা কোন অনুমতি ছাড়াই, ক্ষমতাশীন রাজনৈতিক দলের গুটি কয়েক নেতা ও প্রশাসনের সহযোগীতায় আদালতের কাগজ জালিয়াতির মাধ্যমে পুকুর খনন করেছে।
থানার অফিসার ইনচার্জ রেজাউল ইসলাম জানান, পুকুর খননের বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) ব্যবস্থা নিবেন। আমাদের কিছু করার নাই।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোছাঃ শামসুন্নাহার ভূইয়া জানান, পুকুর খনন করছে লাভের আশায়, আর জমিতে জলাবদ্ধতার কারনেও পুকুর খনন করছে। আরেকটি দুঃখ জনক ঘটনা যে ফসলী জমিতে পুকুর খননের বিষয়ে আমাদের কৃষি অফিসের অনুমতি বা প্রত্যয়ন নেয় না। সেটা নিলে আমরা কখনোই দেবনা। আর কৃষকদের আমরা ভাল ফসল করতে সব সময় পরামর্শ প্রদান করছি। তাদের কোন সমস্য হলেই আমাকে জানালে আমি তাদের বাড়িতে গিয়ে পরামর্শ দিয়ে আসবো।
উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোছাঃ রুমানা আফরোজ জানান, এই পুকুরের মধ্যে আদালতের রিট আবেদন ছিলো। তবে পুকুর খননের খবর পাওয়া মাত্রই আমি নিজে গিয়ে অভিযান চালিয়েছি। জরিমানা সহ ভেকু মেশিন অকেজো করা হয়েছে। আর তার রিপোর্ট প্রতিদিন জেলা প্রশাসক স্যারের নিকট পাঠানো হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ওলিউজ্জামান জানান, আমাদের পক্ষ থেকে খবর পাওয়া মাত্রই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমান আদলতের অভিযান চালিয়ে জরিমানা সহ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে কয়েকটি পুকুরের মহামান্য আদালতের বিষয়টি ছিলো। আর অনেকে রাতের আধারে সেই পুকুর গুলো খনন করেছে। তবে কয়টি পুকুরে আদালতের অনুমতি ছিল বা আছে, সে বিষয়টি জানতে চাইলে তা তিনি জানাতে পারেনি।

সংবাদ শেয়ার করুন

ইব্রাহিম সুজন, নীলফামারী প্রতিনিধ

নীলফামারীর সৈয়দপুরে জমিজমা সংক্রন্ত বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের সাজানো মিথ্যা মামলায় ফেলে এক নিরীহ পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে-নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলা কয়াগোলাহাট ঘোনপাড়া এলাকায়৷ অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বিগত ৭৯ বছর পূর্বে বসতি স্থাপন করে স্থানীয়রা রাস্তার উপর দিয়ে চলাচল করে আসছি৷ সম্প্রতি পারিবারিক কলহের জেরে চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে প্রতিপক্ষ৷ পরবর্তীতে ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে পুলিশ এসে রাস্তা খুলে দিলেও পুলিশ চলে যাবার পরে রাস্তাটি পুনরায় বন্ধ করে দেয় প্রতিপক্ষ৷ পরবর্তী স্থানীয়দের সহোযোগিতায় বাড়ির বিকল্প রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করলেও গত ২৬র্মাচ এ বিকল্প চলাচলের রাস্তাটিও বন্ধ করে দেয়া হয় । এতে বাধা দিলে সিরাজুল ইসলাম ও তার ভাই আজিজুল হক ও শফিকুল ইসলামের পরিবার এ-র উপর আতর্কিত হামলা করে বাড়ী ঘরের বেড়া, চেয়ার, টেবিল ভাংচুর করে ধারালো অস্ত্রসহ(হাচুয়া,বটি,দা) লোহার মোটা পাইপ দিয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট করে প্রতিপক্ষ সিরাজুলরা। আহতদের অবস্থা গুরুতর হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুরে নেয়া হয় (ওসিসি বিভাগের রিপোর্টের ভিত্তিতে সিরাজুল ও শফিকুলদের আসামী করে সৈয়দপুর থানায় মামলা করে ভুক্তভোগী পরিবারটি৷ এদিকে, মামলাটি থানায় দেয়ার পর থেকেই ভুক্তভোগী পরিবারটির উপর বিভিন্ন ধরনের হুমকী ধামকি বিদ্যমান রেখেছে প্রতিপক্ষ৷ ভুক্তভোগী পরিবারের আতিয়ার রহমান খোশো বলেন, আমি রংপুর বিভাগের রংপুর বীর উত্তম শহীদ সামাদ স্কুল এন্ড কলেজের বিজ্ঞান বিষয়ক সহকারী শিক্ষক । ঘটনার দিন আমি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত ছিলাম, এই মর্মে প্রতিষ্ঠান প্রিন্সিপাল মহোদয় প্রত্যায়ন পত্র প্রদান করেন। শফিকুলেরা অপরাধ সংঘটিত করে আগেই মামলা দায়ের করেন৷ আমি উপস্থিতি না থাকলেও আমাকে আসামির শ্রেনীভুক্ত করা হয়েছে৷ এমনকি, সৈয়দপুর পুলিশ ফাঁড়িতে আমার কল রেকর্ড আছে এবং ঐ কল রেকর্ড ট্রাকিং করে দেখা গেছে আমি ঐদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ২৬ শেষ মার্চের জাতীয় অনুষ্ঠানে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনে যুক্ত ছিলাম, শুধু মাত্র আমাকে হয়রানি করার জন্য এবং আমার সন্মান হানি করার জন্য হয়রানি মূলক মিথ্যা সাজানো মামলা করা হয়েছে৷ এ অভিযোগ প্রসঙ্গে শিক্ষকের বিরুদ্ধে করা মামলার বাদী শফিকুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, আতিয়ার রহমান খোশো তাদের সম্পর্কে আত্মীয় আমাদের সাথে জগড়া লাগলে তিনি তাদের পরামর্শ ও শেল্টার দেন। তাই ওনাকে আসামি করা হয়েছে। আমাদের জমিজমা নিয়ে বিরোধ আছে। তারাও আমাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে তাই আমরাও তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছি৷ তবে, মামলার সূষ্ঠ তদন্ত দাবি করেন সহকারী শিক্ষক আতিয়ার রহমানসহ অন্যান্য ভুক্তভোগীর।

নীলফামারীতে মিথ্যা মামলায় ফেলে নিরীহ পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ

ন‌ওগাঁর আত্রাইয়ে রবীন্দ্র কাচারি বাড়ি পতিসরে সাংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় এবং জেলা প্রশাসনের আয়োজনে ১৬১তম রবীন্দ্র জন্মোৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় “মানবতার সংকট ও রবীন্দ্রনাথ”। আজ রবিবার (৮ মে) সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসক জনাব মোঃ খালিদ মেহেদী হাসান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়।
প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বাংলাদেশ সরকারের খাদ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব প্রাপ্ত মাননীয় মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, এমপি।

বিশেষ অতিথি ছিলেন, জনাব মোঃ শহীদুজ্জামান সরকার এমপি ( ন‌ওগাঁ-২), জনাব মোঃ ইমাজ উদ্দিন প্রামাণিক এমপি ( ন‌ওগাঁ-৪), জনাব মোঃ ছলিম উদ্দিন তরফদার এমপি ( ন‌ওগাঁ-৩), জনাব মোঃ নিজাম উদ্দিন জলিল (জন) এমপি ( ন‌ওগাঁ-৫), জনাব মোঃ আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেন হেলাল এমপি ( ন‌ওগাঁ-৬), জনাব মনিরুল আলম, অতিরিক্ত সচিব সাংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রণালয়, জনাব আব্দুল মান্নান মিয়া, বিপিএম পুলিশ সুপার ন‌ওগাঁ জেলা, জনাব মোঃ আব্দুল মালেক, সভাপতি ন‌ওগাঁ জেলা আওয়ামীলীগ, এ্যাডভোকেট একেএম ফজলে রাব্বী বকু, প্রশাসক জেলাপরিষদ, ন‌ওগাঁ।

স্বাগতবক্তব্য দেন, আত্রাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ইকতেখারুল ইসলাম।

আলোচকবৃন্দ, অধ্যক্ষ (অব:) রাজশাহী কলেজ, রবীন্দ্র বিশেষজ্ঞ, প্রফেসর ড. মোঃ আশরাফুল ইসলাম , সাবেক সভাপতি বাংলা বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, প্রফেসর ড. পি এম সফিকুল ইসলাম ,
পরিচালক বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘর, রাজশাহী, প্রফেসর ড. আলী রেজা আব্দুল মজিদ , সহযোগী অধ্যাপক বাংলা বিভাগ, ন‌ওগাঁ সরকারি কলেজ,
ড. মোহাম্মদ শামসুল আলম।

আরও উপস্থিত ছিলেন, আত্রাই উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব আলহাজ্ব এবাদুর রহমান প্রামানিক, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ( পুরুষ) হাফিজুর রহমান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ( মহিলা) মমতাজ বেগম, আত্রাই থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের মুক্তিযোদ্ধাবৃন্দ, উপজেলা প্রশাসনের সকল কর্মকর্তা, ন‌ওগাঁ থেকে আগত ও আত্রাইয়ের সকল সাংবাদিকবৃন্দ, আগত দর্শনার্থীসহ এলাকাবাসী।

সামসুজ্জামান সেন্টু
আত্রাই উপজেলা প্রতিনিধি
তারিখঃ- ০৮/০৫/২০২২ ইং

ন‌ওগাঁর আত্রাইয়ে ১৬১ তম রবীন্দ্র জন্মোৎসব পালিত

themesbazartvsite-01713478536